বার্তাবাংলা ডেস্ক »

chittagong clashচট্টগ্রাম ব্যুরো :: জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোল্লার বিচারের রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে হরতালে নগরজুড়ে সংঘটিত সহিংসতার ঘটনায় চার থানায় ছয়টি মামলা দায়ের করে দুই থেকে আড়াই হাজার মানুষকে আসামি করা হয়েছে। সিএমপির পাহাড়তলী, ডবলমুরিং, পাঁচলাইশ এবং কোতোয়ালী থানায় উক্ত মামলাগুলো রেকর্ড করা হয়। সংঘবদ্ধ হয়ে খুন, বিস্ফোরক, দাঙ্গা-হাঙ্গামা এবং পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগ এনে পুলিশ বাদী হয়ে মামলাগুলো দায়ের করে। ছয়টি মামলার মধ্যে তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে পাঁচলাইশ থানায়। পাঁচলাইশথানার এসআই মোহাম্মদ মামুন বাদি হয়ে মামলাগুলো দায়ের করেছেন। মামলায় ১৯ জনের নাম উল্লেখ করা হয়। এদের মধ্যে ১২ জন আসামিকে গতকাল আদালতে হাজির করা হয়। আদালত তাদের কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন। বাকি সাতজন আসামি চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলেও পুলিশ জানিয়েছে। এছাড়া পাহাড়তলী থানার অলংকার মোড় এলাকায় সংঘর্ষ ও একজন নিহত হওয়ার ঘটনায় ছয়জনের নাম উল্লেখ এবং ৪ থেকে ৫শ’ অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়। পাহাড়তলী থানার এসআই মোহাম্মদ শাহজাহান বাদি হয়ে এই মামলাটি রেকর্ড করেন। মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো ছয় জনকে গতকাল আদালতে হাজির করা হয়। আদালত তাদের জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নগরীর দেওয়ানহাট এবং সন্নিহিত এলাকায় সংঘর্ষে দুইজন নিহত হওয়ার ঘটনায় ডবলমুরিং থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ডবলমুরিং থানার এসআই মনির হোসেন বাদি হয়ে এই মামলাটি রেকর্ড করেন। মামলায় গ্রেপ্তারকৃত ছয়জনের নাম উল্লেখ এবং দেড় থেকে ২ হাজার অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত ছয় জনকে গতকাল আদালতে হাজির করা হয়। আদালত তাদের জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন। এছাড়া মঙ্গলবারের হরতালের সময় টেম্পোতে আগুন দেয়ার ঘটনায় নগরীর কোতোয়ালী থানায় তিনজনের নাম উল্লেখ করে ১৫-২০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। থানার এসআই কামরুজ্জামান বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। এই মামলায় গ্রেপ্তারকৃত তিন জনকে গতকাল আদালতে হাজির করা হয়। আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »