ব্যাখ্যা খুঁজছে জার্মানিও

বার্তাবাংলা ডেস্ক :: পোল্যান্ডের কাছে ২-০ গোলে হার। অনেকেই ভেবেছিল, এমন এক-আদটু আপসেটের ঘটনা ঘটতেই পারে। কিন্তু নিজেদের মাঠে রিপাবলিক অব আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে যখন ১-১ গোলে ড্র করে হোঁচট খেতে হয়, তখন বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের নিয়ে কাটা-ছেঁড়া হবেই। হচ্ছেও। সবাই খুঁজতে শুরু করলেন, ‘কী এমন হলো বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের? যে একের পর এক এভাবে হোঁচট খেতে হবে?’ খোঁজার চেষ্টা করছেন জার্মানির কোচ এবং খেলোয়াড়রাও।

অবশ্যই কোন ব্যাখ্যাই খুঁজে পাননি দলের কোচ জোয়াকিম লো কিংবা মিডফিল্ডার টনি ক্রুস। এ কারণেই ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এসে তারা দু’জনই অকপটে বলতে পারলেন, ‘আমাদের কাছে আসলে এমন পারফরম্যান্সের কোন ব্যাখ্যা নেই।’

নিজেদের মাঠে খেলা। অথচ আইরিশদের জালই খুঁজে পাচ্ছিলো না বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। শেষ পর্যন্ত পেয়েছিলেন টনি ত্রুসই। ৭১ মিনিটে গোলের তালা খোলেন রিয়াল মাদ্রিদের এই তারকা। কিন্তু স্বাগতিকদের হতবাক করে দিয়ে ইনজুরি সময়ে সেই গোল পরিশোধ করে নিজেদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি পয়েন্ট সংগ্রহ করে নিল আয়ারল্যান্ড।

আর পোলিশদের কাছে পূর্ণ তিনপয়েন্ট হারানোর পর আবারও ২ পয়েন্ট খোয়াল জার্মানি। ফলে ইউরো বাছাই পর্বে ‘ডি’ গ্রুপে ৩ ম্যাচে মাত্র ৪ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে চলে আসল জোয়াকিম লো’র শিষ্যরা।

আইরিশদের সঙ্গে ম্যাচ শেষে লো বলেন, ‘আমরা সত্যিই অনেক হতাশ। যখন শেষ মিনিট পর্যন্ত ১-০ গোলে এগিয়ে থেকে শেষ মুহুর্তে গোল হজম করে বসবেন, তখন আর কিছুই করার থাকে না। এটা ছিল তাদের একমাত্র সুযোগ। তবে শেষ গোলের পরও কয়েক মিনিট আমরা অনেক আক্রমণ করে খেলেছি। কিন্তু সুযোগ আর বের করতে পারিনি।’

বিশ্বকাপ জয়ের মাত্র তিন মাসের মাথায় এমন দুঃস্বপ্ন সত্যিই তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে জার্মানিকে। এ কারনেই লো বলেন, ‘আসলে আমার কাছে কোন ব্যাখ্যা নেই। মাঝে মধ্যেই আমরা বলের নিয়ন্ত্রন রাখতে পারিনি। রক্ষণভাগেও অনেক বল হারিয়েছি। এমনকি মিডফিল্ড থেকে বেশ কয়েকবার গোলরক্ষক ন্যুয়ারকে ব্যাক পাস নিতে হয়েছে। যে কারণে অনেকগুলো লম্বা পাস খেলতে হয়েছে তাকে। যেটা আসলে কোনভাবেই আমরা চাই না।’

জার্মানির হয়ে গোলদাতা টনি ক্রুসও হতাশ। তিনি বলেন, ‘সত্যি আমরা খুব হতাশ। এমন পারফরম্যান্সের পর, যত দীর্ঘসময়ই আমরা ভালো খেলি না কেন, তার কোন মূল্য নেই। আমাদেরকে এখন নতুন করেই যেন শুরু করতে হবে। আমার কাছেও এই ড্রয়ের কোন ব্যাখ্যা নেই।’

বিশ্বকাপের ফাইনালে গোলদাতা মারিও গোৎসেও হতাশ। তিনি বলেন, ‘এটা অবিশ্বাস্য। লজ্জাজনক। আমাদের যোগ্যতা এবং সম্ভাবনা দুটোই ছিল। কিন্তু এমন একটি সমাপ্তিতে হতাশ না হয়ে আর উপায় থাকলো না।’