ব্যাংকের টাকা আত্মসাৎ দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ

বার্তাবাংলা ডেস্ক :: রুগ্‌ণ শিল্প দেখিয়ে সুদ মওকুফ করে জনতা ব্যাংক থেকে প্রায় সাড়ে ১২ কোটি টাকার হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় ব্যাংকের চার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সোমবার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। দুদকের উপপরিচালক মীর জয়নুল আবেদীন শিবলীর নেতৃত্বে ৫ সদস্য বিশিষ্ট অনুসন্ধান দল তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন। যাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে তারা হলেন- জনতা ব্যাংকের কর্পোরেট শাখার ডিজিএম মো. আজমুল হক, এজিএম অজয় কুমার ঘোষ, আঞ্চলিক শাখার ডিজিএম এস এম আবু হেনা মোস্তফা কামাল ও প্রধান কর্যালয়ের প্রশাসনের জিএম মো. আবদুছ ছালাম আজাদ। অভিযোগের বিষয়ে দুদক সূত্রে জানা যায়, ধাতুর প্রলেপযুক্ত (গ্যালভানাইজড) তার প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান মুশনাওয়্যার প্রোডাক্ট লিমিটেড কোনো ধরনের যাচাই-বাছাই না করেই এবং রুগ্ন শিল্প হিসেবে এই প্রতিষ্ঠানের প্রায় সাড়ে ১২ কোটি টাকার সুদ মওকুফ করে দেয় জনতা ব্যাংক। এরপর ‘রুগ্ন’ এই প্রতিষ্ঠানটিই ৩৫ কোটি টাকা দিয়ে কিনে নেন বহুল আলোচিত হলমার্ক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর মাহমুদ তানভীর মাহমুদ। আর এ কাজে সহায়তা করেছেন ব্যাংকের কর্মকর্তারাই। দুদক সূত্রে আরো জানা গেছে, জনতা ভবন কর্পোরেট শাখা থেকে ২০০৫ সালে মুশনাওয়্যারের মালিক মো. মাহবুবুর রহমান প্রতিষ্ঠানের নামে ঋণ নিয়েছিলেন। জনতা ব্যাংকের ওই শাখার সুপারিশে মুশনা লিমিটেডকে ১৬ কোটি টাকার ঋণ দেওয়া হয়। গত ছয় বছরে ওই ঋণের সুদের পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় সাড়ে ১২ কোটি টাকা। এরপর মুশনা লিমিটেডকে ‘রুগ্ন শিল্প’ উল্লেখ করে মাহবুবুর রহমানের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১১ সালের ১৯ অক্টোবর জনতা ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের ২০৫তম সভায় ওই প্রতিষ্ঠানের শতভাগ সুদ মওকুফ করে দেওয়া হয়। সুদ মওকুফের ক্ষেত্রে কোনো রকম যাচাই-বাছাই করেনি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। মুশনা লিমিটেডের ঋণের বিপরীতে মেয়াদোত্তীর্ণের আগে আরোপিত সুদের ৯৪ দশমিক ৩০ শতাংশ বাবদ আট কোটি ২২ লাখ ৬১ হাজার ৬৮৭ টাকা, মেয়াদোত্তীর্ণ-পরবর্তী আরোপিত সুদের শতভাগ বাবদ ৭০ লাখ ছয় হাজার ৭৭৪ টাকা এবং অনারোপিত সুদের শতভাগ বাবদ তিন কোটি ২৮ লাখ ৭৪ হাজার ১১৯ টাকা সব মিলিয়ে ১২ কোটি ২১ লাখ ৪২ হাজার ৭৭১ টাকা মওকুফ করে দেয় জনতা ব্যাংক। ঋণ মওকুফের আবেদন মঞ্জুরের মাত্র দেড় মাসের মাথায় ‘রুগ্ন শিল্প’ মুশনা লিমিটেডকে হলমার্কের স্বত্বাধিকারী তানভীর মাহমুদের কাছে সাড়ে ৩৫ কোটি টাকায় বিক্রি করে দেন মাহবুবুর রহমান।