সুবিধা পেলেন ভাগ্যবান দুই হাজার চীনা দম্পতি

বার্তাবাংলা রিপোর্ট :: এক সন্তান নীতির কারণে চীনে কতো দম্পতি যে জরিমানা গুণেছেন তার ইয়ত্তা নেই। অনেকে অসময়ের ঝুঁকি নিয়ে গর্ভপাত করতে ব্যর্থ হয়েছেন। কিন্তু এই কঠোর নীতির কারণে ক্রমেই কর্মক্ষম মানুষের সঙ্কট ঘনীভূত হচ্ছিল। অবশেষে এ নীতি শিথিল করলো চীন। আর এই শিথিলতার সুবিধা পেলেন ভাগ্যবান দুই হাজার দম্পতি।
চীনা সরকার দেশটির রাজধানীর দু’হাজার দম্পতিকে দ্বিতীয় সন্তান গ্রহণের অনুমতি দিয়েছে। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে শহরটির পরিবার পরিকল্পনা নীতিতে কিছুটা শিথিলতা আনার পরিপ্রেক্ষিতে এই অনুমিত দেয়া হলো।

বেইজিং পৌর কর্পোরেশনের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা দপ্তরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২১ হাজার ২৪৯টি দম্পতি দ্বিতীয় সন্তান গ্রহণের অনুমতি চেয়ে আবেদন করে এর মধ্যে ১৯ হাজার ৩৬৩টি দম্পতি আবেদন গ্রহণ করা হয়। আর প্রাথমিকভাবে দুই হাজার দম্পতিকে অনুমতি দেয়া হয়েছে।

এর আগে গত কয়েক দশক ধরে দেশটিতে এক সন্তান নীতি গ্রহণ করা হয়েছিল। যে কারণে দ্বিতীয় সন্তান গ্রহণের কোনো উপায় ছিল না। নিলেও সেক্ষেত্রে কঠোর শাস্তির মুখে পড়তে হত। বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল দেশটি মূলত জনসংখ্যার চাপ সামলাতেই এ পদক্ষেপ নিয়েছিল। কিন্তু সম্প্রতি বৃদ্ধ জনগোষ্ঠী বৃদ্ধি ও কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী কমে যাওয়ায় দেশটি এই নীতি শিথিল করার উদ্যোগ নেয়।

এক সন্তান নীতির কারণে দেশটিতে বিশেষ করে পল্লী অঞ্চলে গর্ভপাতের হার বেড়ে গিয়েছিল। এটা হয়েছিল মূলত মেয়ের থেকে ছেলে সন্তানের ওপর মাত্রাতিরিক্ত প্রাধান্য দেয়ার কারণে। এ জন্যে ২০১০ সালে ছেলে-মেয়ের অনুপাত ছিল যথাক্রমে ১২০ ও ১০০।