মেসির বলে জাদুর ছোঁয়া লেগেছে ইংল্যান্ডে

বার্তাবাংলা ডেস্ক :: মাঠে লিওনেল মেসির প্রভাব ফুটবলপ্রেমীদের কাছে স্পষ্ট। ব্রাজিল বিশ্বকাপে সেই প্রভাবের কিঞ্চিত দেখিয়েছেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। তবে মাঠের বাইরেও মেসির প্রভাব ঈর্ষণীয়! ক্লাব ফুটবলে তিনি খেলেন স্পেনের বার্সেলোনার হয়ে। কিন্তু মাঠের বাইরে তার জাদুর ছোঁয়া লেগেছে ইংল্যান্ডে? মেসির কারণেই নাকি সেখানকার স্কুলগুলোতে স্প্যানিশ ভাষা শেখার হার দিনকে দিন বেড়েই চলেছে। সম্প্রতি এক জরিপে ফুটে উঠেছে এমন তথ্যই। লিওনেল মেসি বলেই সম্ভব…! অবিশ্বাস হওয়ার কিছুই নেই, মেসিকে আইডল মানছেন উঠতি অনেক ফুটবলারই। তাদের মধ্যে যিনি বলের কারিকরি দেখাতে পারেন তাকে বলা হয়, এ তো মেসির মতোই খেলে। বার্সেলোনা স্ট্রাইকার যেভাবে খেলেন, যেভাবে চুলের স্টাইল করেন সেটাই আবার অনেক যুবকের কাছে অনুকরণীয় ও অনুসরণীয়। একসময় ইংল্যান্ডের স্কুলগুলোতে বিদেশি ভাষা হিসেবে ফরাসির আধিপত্য ছিল। ছাত্রছাত্রীরা ইংরেজির পাশাপাশি দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে ফরাসিকে বেছে নিত। কিন্তু পাল্টে গেছে পরিস্থিতি। বেড়ে গেছে স্প্যানিশ শেখার হার! চলতি বছরে ৯৩ হাজার শিক্ষার্থী স্প্যানিশ ভাষায় পরীক্ষা দিয়েছে। গত বছরের চেয়ে ২ হাজার শিক্ষার্থী বেড়েছে। সব মিলিয়ে গত ১ দশকে স্প্যানিশ ভাষা শেখার হার বেড়েছে প্রায় ৫০ শতাংশ! এদিকে, অবনমন হতে শুরু করেছে ফরাসি ভাষার। গত বছর জিসিএসই পরীক্ষায় ফরাসি ভাষাকে বেছে নিয়েছিল ১ লাখ ৭৭ হাজার শিক্ষার্থী। এ বছর সংখ্যাটি কমে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৬৮ হাজার । গবেষকরা মনে করছেন, ইংল্যান্ডের স্কুলগুলোতে স্প্যানিশ ভাষা শেখার হার বেড়ে যাওয়ার পেছনে বড় দুটি বিষয় জড়িত। প্রথমত, ইংলিশ সংস্কৃতিতে লাতিন আমেরিকার অনুপ্রবেশ। দ্বিতীয়ত, স্প্যানিশ ফুটবলের জনপ্রিয়তা। যেই ফুটবলে নান্দনিকতার অন্যতম কারিগর বার্সেলোনার লিওনেল মেসি। চার বছর আগে জার্মান ভাষাকে পেছনে ফেলেছিল স্প্যানিশ ভাষা। বর্তমানে যেভাবে স্প্যানিশ ভাষা দ্রুত গতিতে এগোচ্ছে, তাতে ফরাসি ভাষাকেও পেছনে ফেলবে, এতে সন্দেহ নেই। এ কথার সঙ্গে সুর মিলিয়েছেন ইংল্যান্ডের স্কুল পরীক্ষা বোর্ডের প্রধান নির্বাহী অ্যান্ড্রু হল, ‘ইংল্যান্ডে স্প্যানিশই সবচেয়ে জনপ্রিয় বিদেশি ভাষা হয়ে যাবে। এটা এখন সময়ের অপেক্ষা।’ আর ইংল্যান্ডের স্কুলগুলোতে স্প্যানিশ ভাষার জনপ্রিয়তার ক্ষেত্রে মেসির প্রভাব রয়েছে। সে কথাই ফুটে উঠেছে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বোর্ডের সহসভাপতি লেসলি ডেভিস, ‘ক্লাসরুমে অনেকেই স্প্যানিশ ভাষাকে বেছে নিচ্ছে। গান থেকে শুরু করে খাবারদাবার ও স্প্যানিশ ভাষায় কথা বলা বিখ্যাত ব্যক্তি, যেমন লিওনেল মেসিদের কারণে স্প্যানিশ সংস্কৃতি ইংল্যান্ডের তরুণদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।’