দেশব্যাপী গণসংযোগে বিএনপির ৪৮ টিম

বার্তাবাংলা রিপোর্ট :: সরকার পতন আন্দোলনের পক্ষে জনমত গড়তে দেশব্যাপী গণসংযোগে নেমেছে বিএনপি। ৭৫টি সাংগঠনিক জেলা সফরে গঠন করা হয়েছে ৪৮টি টিম। গতকাল থেকেই এসব টিম কাজ শুরু করেছে। আগামী ৩১শে আগস্ট পর্যন্ত এ গণসংযোগ কর্মসূচি চলবে। গণসংযোগ চলাকালে এসব টিম সাধারণ জনগণকে সম্পৃক্ত করার পাশাপাশি সাংগঠনিক তৎপরতা চালাবে। স্থানীয়ভাবে সভা-সমাবেশ, প্রচারপত্র বিলি, জেলা ও থানা পর্যায়ের নেতাকর্মীদের আন্দোলনের দিকনির্দেশনা দেবেন তারা। দলের সংগঠনগুলোর ত্রুটি-বিচ্যুতিগুলো সমাধান করে আন্দোলনের উপযোগী করে তুলতে কাজ করবেন টিমের নেতারা। এছাড়া ৫ই জানুয়ারির ভোটারবিহীন একতরফা নির্বাচনের পর জোর করে সরকারের ক্ষমতায় থাকা, উপজেলা নির্বাচনে কারচুপি, নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের গুরুত্ব, বিরোধী নেতাকর্মীদের গুম-খুন, মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার-হয়রানি, আওয়ামী লীগের টেন্ডারবাজি-দুর্নীতি-লুটপাট, গণবিরোধী জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা, বিচারপতিদের অভিশংসনের ক্ষমতা সংসদে ফেরানোর সরকারের উদ্দেশ্যসহ নানা বিষয় জনগণের সামনে তুলে ধরবেন তারা। দ্রুত আরেকটি নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য তৃণমূল মানুষের জনমত গড়ে তুলবে এসব টিম। গণসংযোগ কর্মসূচি শেষে ১লা সেপ্টেম্বর থেকে তিন দিনব্যাপী সারা দেশে বিএনপি ৩৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান পালন করবে। এরপর নতুন আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করবে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট। বিএনপির দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ মানবজমিনকে বলেন, দেশব্যাপী গণসংযোগ করার জন্য ৪৮টি টিম গঠন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকেই এসব টিমের নেতারা কাজ শুরু করেছে। অনেকে বিভিন্ন জেলায় অবস্থান করছেন। গণসংযোগকালে স্থানীয় সংগঠনগুলো শক্তিশালী করার ওপর জোর দেবেন। কারণ সংগঠনগুলো শক্তিশালী হলেই সরকার পতন আন্দোলন সফল হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। এছাড়া জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা, বিচারপতিদের অভিশংসন ক্ষমতায় সংসদে ফেরানোর উদ্দেশ্যসহ সরকারের নানা অনৈতিক কার্যকলাপ সাধারণ মানুষের সামনে তুলে তুলে ধরবে টিমগুলো। যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, আমাকে নাটোর জেলায় গণসংযোগের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। আগামী সপ্তাহের মামলার হাজিরা শেষে ওই জেলায় সফর করবো। স্থানীয় ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীসহ বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করবো। এছাড়া এই অবৈধ সরকারের বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকাণ্ড জনগণের সামনে তুলে ধরবো। বিএনপির দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ৪৮টি টিমের মধ্যে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে টিম প্রধান করা হয়েছে। মির্জা আলমগীরের সঙ্গে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ও মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস মানিকগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ ও ঢাকা মহানগরীতে গণসংযোগ করবেন। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদকে ঢাকা জেলা ও নারায়ণগঞ্জ জেলায় গণসংযোগ করবেন। এছাড়া স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও জেলায়, তরিকুল ইসলাম নড়াইল, খুলনা জেলা ও মহানগরে, ব্রিগেডিয়ার (অব.) আ স ম হান্নান শাহ নোয়াখালী ও লক্ষ্মীপুর, এম কে আনোয়ার চট্টগ্রাম দক্ষিণ ও মহানগর, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার দিনাজপুর ও সৈয়দপুর, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া ময়মনসিংহ উত্তর ও দক্ষিণ, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় যশোর ও ঝিনাইদহ, ড. আব্দুল মঈন খান ফরিদপুর ও মাদারীপুর, নজরুল ইসলাম খান বগুড়া, রাজশাহী মহানগর ও সিরাজগগঞ্জে গণসংযোগ করবেন। ভাইস চেয়ারম্যানদের মধ্যে- আবদুল্লাহ আল নোমান বরিশাল মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা, এম মোরশেদ খান কক্সবাজারে, মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম পিরোজপুর, এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী ভোলা, সেলিমা রহমান নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জে, শমসের মবিন চৌধুরী ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও হবিগঞ্জ, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ রাজবাড়ী ও গোপালগঞ্জে, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক নরসিংদী, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী রাঙ্গামাটি ও ফেনী, আবদুল আউয়াল মিন্টু খাগড়াছড়ি, মীর মোহাম্মদ নাছিরউদ্দিন কুমিল্লা, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু রাজশাহী ও পাবনা, ফজলুর রহমান পটল নীলফামারী, ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ, মুশফিকুর রহমান শেরপুর, খন্দকার মাহবুব হোসেন বরগুনা, শামসুজ্জামান দুদু সাতক্ষীরা, এডভোকেট আহমেদ আজম খান শরীয়তপুর, হারুন-অর রশিদ নওগাঁ ও জয়পুরহাট, এডভোকেট জয়নুল আবেদীন গাজীপুর জেলা, যুগ্ম মহাসচিব আমানউল্লাহ আমান মাগুরা ও বাগেরহাট, মিজানুর রহমান মিনু রংপুর জেলা ও মহানগর, মো. শাহজাহান সুনামগঞ্জ ও মৌলভীবাজার, বরকতউল্লাহ বুলু কুমিল্লা উত্তর ও চাঁদপুর, সালাহউদ্দিন আহমেদ সিলেট মহানগর ও জেলা, সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আকবর খোন্দকার বান্দরবান, রুহুল কুদ্দস তালুকদার দুলু পটুয়াখালী, মশিউর রহমান কুষ্টিয়া, মনিরুল হক চৌধুরী মেহেরপুর, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু কুড়িগ্রাম ও গাইবান্ধা, আন্তর্জাতিক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন সাতক্ষীরা, নাজিম উদ্দিন আলম ঝালকাঠি, আইনবিষয়ক সম্পাদক এড. নিতাই রায় চৌধুরী চুয়াডাঙ্গা, যুবদল সভাপতি এড. সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল নাটোর ও প্রচার সম্পাদক জয়নুল আবদিন ফারুককে জামালপুর, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীকে লালমনিরহাট জেলায় গণসংযোগের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানসহ বেশ কয়েকজন নেতা দায়িত্বপ্রাপ্ত সংশ্লিষ্ট জেলায় অবস্থান করছেন। এতে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে।