লঞ্চডুবিতে নিখোঁজ ১১৫

বার্তাবাংলা রিপোর্ট :: মুন্সীগঞ্জের মাওয়া ফেরিঘাটের অদূরে পদ্মায় এমভি পিনাক-৬ লঞ্চডুবির ঘটনায় নিখোঁজের সংখ্যা বেড়েই চলছে। সোমবার রাত ১০টা পর্যন্ত শতাধিক নিখোঁজ যাত্রীর তালিকা তৈরি করেছে কর্তৃপক্ষ। মাওয়া ঘাটে ভিড় জমানো স্বজনদের কাছ থেকে খোঁজ-খবর নিয়ে তালিকায় ১১৫ জনের নাম লিপিবদ্ধ করা হয়েছে।

নিখোঁজ যাত্রীদের তালিকা তৈরি করতে স্থানীয় প্রশাসন মাওয়া ঘাটে পদ্মার তীরে তাবু টাঙিয়ে কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

বিআইডব্লিউটিএ, বিআইডব্লিউটিসি, শ্রীনগর ও লৌহজং থানা পুলিশ এবং উপজেলা প্রশাসন পৃথকভাবে মৃতের তালিকা, নিখোঁজের তালিকা ও উদ্ধারের তালিকা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছে।

প্রশাসনের হিসাব অনুয়ায়ী, নিখোঁজ যাত্রীদের মধ্যে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার বন্দরখোলার মিজানুর রহমান (৩৫), তার স্ত্রী রোখসানা (৩০), মেয়ে মিলি, ছেলে মাইনুল, মীম (১৫),  গোপালগঞ্জের মোকসেদপুর উপজেলার পলি (২৮) ও তার মেয়ে মেঘলা (সাড়ে ৬ বছর), মিজানুর রহমান, আরমিন (১৬), আরফিন (১৭), ইমতিয়াজ রহমান, আয়শা আক্তার ও তার মেয়ে সারা, সাদিয়া (৯), ফালানি বেগম, দিপা আক্তার (১৩), রাবিব (১২), হানিফ (আড়াই বছর), মেরি ও রবিউলের নাম জানা গেছে।

শ্রীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মাহবুবুর রহমান ১১৫ জন নিখোঁজ থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সোমবার বেলা ১১টার দিকে কাওড়াকান্দি থেকে মাওয়া যাওয়ার পথে পদ্মায় প্রচণ্ড স্রোতের তোড়ে এমভি পিনাক-৬ পদ্মায় ডুবে যায়। দুই শতাধিক যাত্রীর মধ্যে ৪০ থেকে ৪৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হলেও বাকিরা নিখোঁজ রয়েছেন।