লক্ষাধিক শিক্ষকের বেতন-বোনাস অনিশ্চিত

বার্তাবাংলা ডেস্ক::শিক্ষা অধিদপ্তরের এমপিও শাখার কর্মকর্তাদের গাফিলতির কারণে বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের জুন মাসের বেতন ও ঈদ বোনাস অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এমন অভিযোগ করেছেন শিক্ষক কর্মচারী সংগ্রামী ঐক্য জোটের সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম রনি।

নজরুল ইসলাম বলেন, ‘মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের (মাউশি) মহাপরিচালকের (ডিজি) আন্তরিকতা ও সহযোগিতায় দেরিতে হলেও জুন মাসের বেতন এবং ঈদ বোনাসের চিঠি পাঠানো হয়। কিন্তু বরাদ্দকৃত টাকার পরিমাণ কম/বেশি হওয়ায় অগ্রণী ব্যাংকের বিভিন্ন শাখা ব্যাংকের বরাদ্দ টাকা এবং মাউশির প্রেরিত টাকার ভাউচারে গড়মিল থাকায় সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের শাখাগুলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে টাকা বিতরণ করতে অসম্মতি প্রকাশ করছে। শিক্ষকরা ব্যাংকে যোগাযোগ করলে তাদেরকে শিক্ষা অধিদপ্তরে যোগাযোগ করার কথা বলে বিদায় করে দেয়া হয়। ঈদের আগে এখনো টাকা না পেয়ে শিক্ষক সমাজে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।’

বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মো. রিয়াজ উদ্দিন বলেন, ‘আসন্ন ঈদুল ফিতরের আগে ঈদ বোনাস ও জুন মাসের বেতন-ভাতা না পেলে শিক্ষক কর্মচারীদের পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদের আনন্দ উপভোগ করা তাদের জন্য কঠিন হয়ে পড়বে। তাদের দুঃখ দুর্দশার আর সীমা থাকবে না।’

তিনি আরো বলেন, ‘অগ্রণী ব্যাংকের মিরপুর শাখায় যোগাযোগ করা হলে ব্যাংক থেকে বলা হয় মাউশি বেতনের টাকা/ভাউচার প্রদানে তড়িঘড়ি করায় তাদের ভুল হয়েছে। এ ভুলের জন্য তারা দুঃখ প্রকাশ করেছে। কিন্তু শিক্ষা অধিদপ্তরের ভুলের মাশুল শিক্ষক কর্মচারীদের গুণতে হবে কেন?