লক্ষ্মীপুরে স্কুল ছাত্রীসহ তিনজনের লাশ উদ্ধার

বার্তাবাংলা ডেস্ক::লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দক্ষিন টুমচর এলাকার শ্বশুর বাড়ি থেকে জামাই সোহাগ হোসেন, কমলনরের মেঘনা নদী থেকে জেলে নুরনবী ও রায়পুরে স্কুল ছাত্রী স্বপ্না আক্তারসহ পৃথক ঘটনায় তিনজনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দক্ষিন টুমচর গ্রামের শ্বশুর মোস্তফা মিয়ার বাড়িতে জামাই সোহাগ হোসেন বেড়াতে যায়। রাতে স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে পারিবারিক কলহের জের ধরে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে শ্বশুর বাড়ির লোকজন জামাই সোহাগকে পিটিয়ে হত্যা করে লাশ ঘরের পিছনে গাছের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে আতœহত্যা বলে প্রচারণা চালায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তার লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় শ্বাশুরী মুরশিদা বেগমকে আটক করেছে পুলিশ। স্ত্রী জাহানারা বেগম টুনী ও শ্বশুর মোস্তফা মিয়ার ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে। নিহত সোহাগ একই উপজেলার বাঞ্চানগর গ্রামের মৃত আবদুর রহিমের ছেলে বলে জানা যায়।
অপর দিকে কমলনগর উপজেলার মেঘনা নদীর লধুয়া মাছ ঘাট থেকে নিখোঁজের দুইদিন পর জেলে নুর নবীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত নুরনবী শনিবার বিকেলে কমলনগর উপজেলার মেঘনার নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে নিখোঁজ হন। এছাড়া রায়পুর উপজেলার চরপাতা গ্রাম থেকে এলএম পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্রী স্বপ্না আক্তারের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত স্বপ্না একই গ্রামের সিদ্দিক উল্যার মেয়ে। এটা হত্যা না আত্মহত্যা তা পুলিশ নিশ্চিত তরতে পারেনি। সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, নিহতদের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।