‘সুনামগঞ্জে নৌকা ডুবিতে নিহত ৩’

বার্তাবাংলা রিপোর্ট ::সুনামগঞ্জের পৌর শহরের মল্লিকপুর এলাকার পাশে সুরমা নদীতে নৌকা ডুবিতে ৩জন মারা গেছেন। সোমবার ভোর রাতে এ নৌ-দুর্ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় অপর ৩জন মাঝি সাতাঁর কেটে পাড়ে উঠে জীবন রক্ষা করে।
নিহতরা হলো, সদর উপজেলার লক্ষনশ্রী ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের মল্লুক মিয়ার ছেলে জমির আলী (২২), মৃত আব্দুর রায়হানের ছেলে ফয়েজ আহমদ (২৮) ও আব্দুস সালামের ছেলে সায়মন আহমদ (২৭)। বেঁেচ যাওয়া যাত্রীরা হলো একই গ্রামের আলী নেওয়াজের ছেলে শরিফ মিয়া, শুকুর আলীর আলীর ছেলে জলিল মিয়া ও নূর আহমদ।
স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মল্লিকপুর এলাকার সুরমা ব্রীজ সংলগ্ন নদীতে ‘মায়ের দোয়া’ নামের একটি বালি বোঝাই নৌকা নোগর করে অবস্থান করছিল। নৌকায় থাকা ৬জন ভোর রাতে সেহেরি খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। প্রচন্ড বৃষ্টির কারণে নৌকায় পানি জমে হঠাৎ করেই ডুবে যায়। এ সময় নৌকায় থাকা ৬জনের মধ্যে ৩জন সাঁতার কেটে পাড়ে উঠলেও অন্য ৩জন নৌকার সাথে ডুবে যায়।
খবর পেয়ে সকাল ৯টায় সুনামগঞ্জ সদর থানা পুলিশ ও দমকল বাহিনীর কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার শুরু করে। বেলা পৌনে ১১টায় সুরমা নদীতে ডুবে যাওয়া নৌকার ভেতর থেকে তিন জনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ ও দমকল বাহিনীর কর্মীরা। তবে ডুবে যাওয়া নৌকাটি উদ্ধার করা যায়নি।
বেঁেচ যাওয়া যাত্রী নূর আহমদ জানায়, মল্লিকপুর এরাকার সুরমা নদীর পাড়ে একটি বালু ডাম্পে তারা বালু সরবরাহ করতো। রোববার নৌকায় বালু বোঝাই করে তারা নিয়ে আসে। সন্ধ্যা হয়ে যাওয়া বালু আনলোড না করে আজ সোমবার সকালে বালু আনলোড করার কথা ছিল। অপর বেঁচে যাওয়া যাত্রী জলিল মিয়া জানায়, সেহেরি খেয়ে আমরা ঘুমিয়ে পড়ি। প্রচুর বৃষ্টির পানি জমে নৌকাটি ডুবে যায়। আমরা ৩জন বের হতে পারলেও যারা মারা গেছে তারা নৌকার সাথে ডুবে যায়।
সুনামগঞ্জ সদর থানার এসআই ফরিদ আহমদ জানান, নিহতের লাশ তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।