স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যার পর আত্মহত্যা

বার্তাবাংলা রিপোর্ট :: যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের বাসিন্দা সাবেক টেনিস খেলোয়ার ডারিন ক্যাম্পবেল তার স্ত্রী এবং টিনএজ দুই সন্তানকে গুলি করে হত্যা করার পর বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেন। পরে নিজেও আত্মহত্যার পথ বেছে নেন। শুক্রবার হিলসবোরগ কাউন্টির শেরিফ কর্ণেল ডোনা লুসজিনস্কি এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান বলে ইয়াহু নিউজ জানিয়েছে।

শেরিফ ডোনা সাংবাদিকদের বলেন, ডারিন ক্যাম্পবেল তার স্ত্রী ও সন্তানদের হত্যা করার আগের দিন আতশবাজি এবং পেট্রোল কিনে আনেন। পরদিন তিনি স্ত্রী কিমবারলি, ১৯ বছরের ছেলে কলিন ক্যাম্পবেল এবং কিশোরী কন্যা মেগানকে গুলি করে হত্যা করেন। এরপর পেট্রোল ঢেলে বাড়ির চারপাশে আগুন ধরিয়ে দেন। পরে মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে নিজেও আত্মহত্যা করেন।

তবে কি কারণে ডারিন ক্যাম্পবেল তার গোটা পরিবারকে এভাবে খুন করলেন তা জানা যায়নি। এ রহস্য উদঘাটনে এখনো তদন্ত চলছে বলে মেয়র ডোনা জানিয়েছেন। তবে ক্যাম্পবেলের কোনো ক্রিমিনাল রেকর্ড নেই।

ক্যাম্পবেল ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের জেমস ব্লেক এলাকায় ছয় হাজার বর্গফুটের একটি বিলাসবহুল বাড়িতে সপরিবারে ভাড়া থাকতেন। তিনি ছিলেন একজন সাবেক পেশাদার টেনিস খেলোয়ার। খেলা ছেড়ে দেয়ার পর নানা ধরণের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন তিনি। তার স্ত্রী কিমবারলি ছিলেন পুরোদস্তুর হাউজওয়াইফ।