‘বন্দুকযুদ্ধে’ শীর্ষ সন্ত্রাসী নিহত

বাপোর্তাবাংলা রির্ট :: অভয়নগর উপজেলায় শংকরপাশায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সাইফুল ইসলাম শিকারী (৩৫) নামের এক তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী নিহত হয়েছেন। এসময় পুলিশের ৫ সদস্য আহত হয়।

এদিকে ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান ও এক রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাত পৌনে দুইটার দিকে উপজেলার ভৈরব নদের তীরে শংকর পাশা শ্মশানে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, নিহত সাইফুল ইসলাম শিকারী তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী। তার বাড়ি শংকরপাশা গ্রামে। বাবার নাম মোহন শিকারী।
অভয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা খবির আহমেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, একটি বিস্ফোরক মামলায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সাইফুল শিকারীকে আটক করা হয়। রাতে তাকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে বের হয় পুলিশের একটি দল। রাত পৌনে ২টার দিকে শংকরপাশা বিশ্বাসপাড়া শ্মশানঘাট এলাকায় সাইফুলের লোকজন পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা ২২ রাউন্ড গুলি ছোড়ে।

এ সময় আহত হন পুলিশের এসআই আরিফ, এএসআই আহসান হাবিব, এএসআই তৌহিদুল ইসলাম, কনস্টেবল মেহেদি ও মোসাহেদ। এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে সাইফুলের সহযোগীদের ফেলে যাওয়া একটি দেশিয় তৈরি পাইপগান ও দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে।

ওসির দাবি, বন্দুকযুদ্ধের এক পর্যায়ে সহযোগিদের ছোড়া গুলিতেই সাইফুল নিহত হন। সাইফুল পুলিশের তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী। দীর্ঘদিন ধরে তিনি ভারতে পালিয়ে ছিলেন।

নিহত সাইফুলের বিরুদ্ধে দুইটি হত্যাসহ ডাকাতি ও বিস্ফোরণের ৮টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে ২০১১ সালের ১৩ ডিসেম্বর অভয়নগরের নওয়াপাড়া বাজারে কর্মচারী জাহিদুল ইসলামকে হত্যা করে ৫ লাখ টাকা ছিনতাই ও ২০০৮ সালের ৫ মার্চ খলিল শিকারী হত্যা মামলা বলে জানান ওসি।