‘জনগণকে নিয়ে আমাদের আন্দোলন করতে হবে’

বার্তাবাংলা ডেস্ক :: ভারতের নির্বাচনে কোন দল ক্ষমতায় এল, সেদিকে তাকিয়ে থাকলে আমাদের চলবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, তিস্তাসহ অভিন্ন ৫৪টি নদীর পানির নায্য হিস্যা আদায়ে জনগণকে নিয়ে আমাদের আন্দোলন করতে হবে। কারণ ভারতের সব সরকারই একচোখা।

আজ রোববার বিকেলে রাজধানীর হোটেল পূর্বাণীতে বিএনপি আয়োজিত ‘তিস্তা নদীর পানি: প্রেক্ষিত বাংলাদেশ’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনায় এসব কথা বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, ভারতে যে সরকারই ক্ষমতায় আসে, তারা সবাই এক চোখে দেখে। তারা বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের জীবন যে বিপন্ন হচ্ছে, সেদিকে না তাকিয়ে তাদের দেশের মানুষের জীবন কীভাবে সমৃদ্ধ করা যায়, সেটা নিয়ে চিন্তা করে।

বিএনপি দুই দিকে আন্দোলন করব- এমন মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, একদিকে ‘অবৈধ’ সরকারের বিরুদ্ধে নির্দলীয় সরকারের অধীনে অবাধ নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন চলবে, অন্যদিকে তিস্তাসহ সব ধরনের অভিন্ন নদীর পানির ন্যায্য হিস্যার দাবি আন্তর্জাতিক মহলে তুলে ধরা হবে। জনগণের এ লড়াই সফল হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, অনেকেই প্রশ্ন করেছেন, বর্তমান সময়ে লংমার্চের মতো কর্মসূচি সময়োপযোগী কি না। আমি বলি, এখনই সময়। কারণ উত্তরাঞ্চলের প্রায় তিন কোটি কৃষক তাদের ফসল উৎপাদনে সেচের পানি পেতে ঘাম ঝরাচ্ছেন। পরিবেশসহ সার্বিক পরিস্থিতি এখন চরম হতাশাজনক। ক্ষমতায় যাওয়া বা ভাগাভাগির জন্য নয়, জনগণের কল্যাণে বিএনপি কাজ করবে বলে জানান তিনি।

সরকার ও ক্ষমতাসীন দলের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, লংমার্চ নিয়ে শাসকগোষ্ঠীর মন্ত্রী-এমপিরা অযাচিত সব বক্তব্য দিচ্ছেন। কেউ বলছেন তিস্তার সন্ত্রাস সহ্য করা হবে না। এখানে সন্ত্রাসের কী আছে? অথচ পানি নিয়ে তাদের কোনো চিন্তা নেই। কেননা, তারা জনগণের আস্থা ও সমর্থনে নয়, ভারতের সমর্থনে টিকে আছে। তাই তাদের খুশি করতেই এ সরকার সব কাজ করতে হচ্ছে।

আলোচনায় বুয়েটের পানিসম্পদ ও প্রকৌশল বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মো. শাব্বীর মোস্তফা মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।