মা-ভাই-ছেলেকে বেঁধে গৃহবধূকে গণধর্ষণ

বার্তাবাংলা ডেস্ক :: মতলব দক্ষিণে মা, ভাই আর সন্তানকে বেঁধে রেখে গৃহবধূকে (২২) গণধর্ষণের ঘটনায় পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হোসাইন মো. কচিকে আটক করেছে পুলিশ। এতে ক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা মতলব পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানে তাণ্ডব চলিয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে মতলব পৌর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ধর্ষণেল শিকার গৃহবধূ বর্তমানে থানা হেফাজতে রয়েছে।

এর আগে ধর্ষিতা বাদী হয়ে ৫ ধর্ষকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করলে পুলিশ পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হোসাইন মোহাম্মদ কচিকে আটক করে।

মামলার এজহারে জানা যায়, মতলব দক্ষিণের একটি ভাড়া বাসায় স্বামী-সন্তান নিয়ে ওই গৃহবধূ বসবাস করছিলেন। স্বামী একটি মামলায় বর্তমানে জেলহাজতে রয়েছেন। সোমবার সন্ধ্যায় ধর্ষিতার স্বামীর বন্ধু সিরাজুল ইসলাম ওই বাসায় মামলার খোঁজখবর নেয়ার জন্য আসেন।

বিষয়টি পরকীয়া ভেবে মতলব দক্ষিণ ছাত্রলীগ নেতা কচিসহ তার চার বন্ধু নজর রাখে। এক পর্যায়ে রাতে ওই পাঁচ জন গৃহবধূর ঘরে ঢোকে। এসময় সিরাজসহ গৃহবধূর মা, ভাই ও ছেলেকে ঘর থেকে বের করে এনে গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখে। এরপর কচিসহ তহসীব, শরীফ, বাবু ও জামাল মিলে গৃহবধূকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

দুপুরে ধর্ষিতা গৃহবধূ থানায় মামলা দায়ের করলে বিকেলে কচিকে আটক করে পুলিশ। এরপরই ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মতলব পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানে তাণ্ডব শুরু করে। তারা মতলব অটোরিকশা স্ট্যান্ড এলাকায় টায়ারে আগুন জ্বালায়, কয়েকটি রিকশা ভাঙচুর ও দোকানপাটে হামলার চেষ্টা চালায়।

তাণ্ডব চলাকালে পুলিশকে নীরব ভূমিকা পালন করতে দেখা গেছে।