শঙ্কা নিয়েই চট্টগ্রামের ৭ উপজেলায় কাল ভোট

বার্তাবাংলা ডেস্ক :: প্রশাসনের ব্যাপক প্রস্তুতির মাঝেও ভোটারদের মনে শঙ্কা নিয়েই রোববার শুরু হচ্ছে চট্টগ্রামের সাত উপজেলায় চতুর্থদফা উপজেলা নির্বাচন।

এর আগে তৃতীয়দফা নির্বাচনে সীতাকুণ্ড ও চন্দনাইশে বিচ্ছিন্ন কিছু সংঘাতের ঘটনা ঘটায় এবার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে বাড়তি সতর্কাবস্থায় রাখা হয়েছে।

এরপরও বিরোধী দল সমর্থিত প্রার্থী, তাদের সমর্থক এবং সাধারণ ভোটারদের মধ্যে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে শঙ্কা থেকেই যাচ্ছে।

সে কারণে গণমাধ্যমে বিবৃতি পাঠিয়ে নেতাকর্মীদের ভোটকেন্দ্র পাহারা দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান।

রোববার সারাদেশের ৪৩ জেলার ৯১টি উপজেলার মধ্যে চট্টগ্রামের বোয়ালখালী, আনোয়ারা, সাতকানিয়া, বাঁশখালী, রাউজান, রাঙ্গুনিয়া এবং ফটিকছড়ি এ সাত উপজেলাতেও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এ ব্যাপারে চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার (এসপি) একেএম হাফিজ আক্তার জানান, চট্টগ্রামের সাত উপজেলায় পুলিশ, আনসারসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রায় ১২ হাজার সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন।

তিনি জানান, প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে পুলিশ ও আনসারের সমন্বয়ে ১৮ জন করে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন।

এছাড়া তিন ভোটকেন্দ্র মিলিয়ে থাকছে একটি করে পেট্রল টিম। থানায় অবস্থান করবে আরো প্রায় ১০০ রিজার্ভ ফোর্স। সেনাবাহিনী ও বিজিবি সদস্যরা স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে ভোটকেন্দ্রের বাইরে এলাকায় টহল দেবেন।

জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রামের সাত উপজেলার ৬৬৬ টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণের জন্য ১৪ হাজার ২২৭ জন কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এদের মধ্যে ৭০০ জন প্রিসাইডিং অফিসার, ৪ হাজার ৫২৯ জন সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার এবং ৯ হাজার ৯৮ জন পোলিং অফিসার।

সাত উপজেলায় মোট ১০২ জন চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনী যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন।
এদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৩১ জন, পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪৬ জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।