বার্তাবাংলা ডেস্ক »

khaleda12345বার্তাবাংলা রিপোর্ট :: বেগম খালেদা জিয়াকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ও রাজনৈতিকভাবে হেয় করার জন্যই দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষ থেকে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট এবং জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা দায়ের করা হয়েছে। তাই এ মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে বিএনপি।

এ মামলায় গতকাল দলটির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এবং সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দপ্তরের দায়িত্বে থাকা যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদ সংবাদ সম্মেলন করে মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।

রিজভী আহমেদ বলেন, ‘অভিযোগ গঠন যথাযথ আইনী প্রক্রিয়া অনুরসণ করে হয়নি। বিএনপি চেয়ারপারসন আদালতে উপস্থিত ছিলেন, অথচ অভিযোগ গঠনের বিষয়ে কোনো প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়নি। সে বিষয়ে কোনো শুনানিও হয়নি। দোষী না নির্দোষ তা জিজ্ঞাসাও করা হয়নি। যা সরকারের কুটিল চক্রান্তের অংশ।’ এ নিয়ে আইনী লড়াই এবং রাজনৈতিক সংগ্রাম অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন তিনি।

চতুর্থ দফা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকার বিএনপি নেতাকর্মীদের হুমকি দিচ্ছে এবং গ্রেপ্তার করা হচ্ছে অভিযোগ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘নির্বাচনের ফালাফল পক্ষে নিতেই এসব করা হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দলীয় ক্যাডারের ভূমিকা পালন করছে।’ এসবের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে সব মামল প্রত্যাহার এবং আটক নেতাকর্মীদের মুক্তি দাবি করেন রিজভী আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘নেতাদের প্রতিটি রক্ত বিন্দু প্রতিরোধ আর প্রতিশোধের তরবারী হয়ে উঠছে। জাতীয়তাবাদী শক্তি বসে বসে মার খাবে না। শান্তিপূর্ণ আন্দোলন যদি বন্দুকে তপ্ত বুলেটে দমন করা হয় তাহলে পাল্টা ব্যবস্থা হবে লৌহ কঠিন।’

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দলের যুগ্ম-মহাসচিব বরকত উল্লাহ বুলু, সালাউদ্দিন আহমেদ, অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, সহ-দপ্তর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা, রফিক শিকদার প্রমুখ।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »