এ সরকার অবৈধ : খালেদা জিয়া

বার্তাবাংলা রিপোর্ট :: এ সরকার অবৈধ ও জবরদখলকারী সরকার— এ সরকার বহূদলীয় গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না বলে জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও ১৯ দলের নেতা খালেদা জিয়া। শনিবার রাজবাড়ী জনসভায় এ কথা বলেন তিনি।

খালেদা জিয়া বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার জনগণের সম্পদ লুট করেছে, এ আওয়ামী লীগ দেশ থেকে যদি বিদায় না নেয় তাহলে আন্দোলন করতে হবে।

উপজেলা নির্বাচন শেষ হলে সরকার পতনের আন্দোলন শুরু করা হবে জানান বিএনপির এ নেতা।

বিএনপি ক্ষমতায় গেলে সারাদেশে সুষম উন্নয়ন করা হবে, দলমত নির্বিশেষে সকল বেকার যুবকদের চাকরির ব্যবস্থা করা হবে। এছাড়াও পদ্মা সেতুসহ কৃষি ভর্তুকি দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

একাত্তরে রক্ত দিয়ে দেশ স্বাধীন করা হয়েছে এখন কেন দেশ রক্ষায় রক্ত দিতে পারবো না—? এ প্রশ্ন জনগণের কাছে রেখে খালেদা জিয়া বলেন, আওয়ামী লীগ রক্তপিপাসু একটি দল এরা দেশের জনগণকে রক্ষা করতে পারবে না। জনগণের দাবি নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচ । তথাকথিত সংসদে আজ কোনো বিরোধীদল নেই, আওয়ামী লীগ জোর করে ক্ষমতায় এসেছে। জনগণ দেখেছে কিভাবে উপজেলা নির্বাচনে ভোট ডাকাতি করেছে তারা। তারপরও ভোট দেয়া থেকে দেশের জনগণকে বিরত রাখতে পারেনি। এসব নির্বাচন প্রমাণ করে দিয়েছে। এদেরকে জনগণ আর এ সরকারকে দেখতে চায় না। অসৎ উদ্দেশ্য তারা ঢাকা সিটিকে দুই ভাগ করেছে। কিন্তু এখনো সেখানে নির্বাচন করতে পারেনি বলে মন্তব্য করেন খালেদা জিয়া।

খালেদা জিয়া বলেন, এ সরকার ক্ষমতায় এলে জঙ্গিবাদের উত্থান হয়। এই যে জঙ্গিরা কিভাবে পালানোর ব্যবস্থা করেছে তার জবাব দিতে হবে এ সরকারকে। এ সরকারের কাছে দেশের জনগণ নিরাপদ নয়।

বেলা পৌনে ৩টার দিকে তার গাড়িবহর রাজবাড়ী ডাকবাংলায় পৌঁছায়।

যাত্রাপথে বিএনপি চেয়ারপারসন মানিকগঞ্জের ঘিওরে দলের প্রয়াত মহাসচিব খন্দকার দেলোয়ার হোসেনের কবর জিয়ারত করেন ও তার পরিবারের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

এর আগে সকাল ১১টায় গাড়িবহর নিয়ে গুলশান থেকে যাত্রা শুরু করেন খালেদা জিয়া। দশম সংসদ নির্বাচনের পর প্রথম রাজধানীর বাইরে গেলেন বিএনপি চেয়ারপারসন।