দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের ওপর কালোদের হামলা

মোহাম্মদ নোমান মিয়া, জোহানেসবার্গ, (সাউথ আফ্রিকা) থেকে :: দক্ষিণ আফ্রিকার বিভিন্ন শহরে সাম্প্রতিক সময়ে স্থানীয় সন্ত্রাসীদের হামলায় দু শতাধিক বাংলাদেশি আহত হয়েছেন। গত বুধবার থেকে থেমে থেমে এ হামলা চলছে। গতকাল শনিবারও এ হামলা চলে বলে জানিয়েছেন দেশটিতে বসবাসরত বাংলাদেশিরা। সাম্প্রতিক এই সহিংসতায় হেলিট্রন শহরে প্রাণ হারিয়েছেন বাংলাদেশি ব্যবসায়ী মোঃ ইলিয়াস শাহ্ (৩৯)সহ আরো ৪ জন। নিহত ইলিয়াস শাহ্রে বাড়ি নওগাঁ সদরে বলে জানা গেছে।
ফেসবুকে ‘বাংলাদেশি ইন সাউথ আফ্রিকা’ গ্রুপে শনিবার বিকেল ৪টার দিকে দেয়া একটি পোস্টে বলা হয়, দেশটির ডুডুজা, হেলিট্রন, ও হাম্বার্কশ্যায়রসহ আফ্রিকার বেশকিছু লোকেশনে কালোদের পরিকল্পিত হামলায় তিগ্রস্ত হয়েছেন প্রায় ৪ শতাধিক বাঙালি ব্যবসায়ী। বিভিন্ন লোকেশনে কালোরা ‘জেনোফোবিয়া’ আক্রমণ চালাচ্ছে। কিন্তু এ বিষয়ে তারা দূতাবাস কিংবা স্থানীয় বাংলাদেশি কমিউনিটির কাছ থেকে কোনো সহযোগিতা পাচ্ছেন না। গ্রুপে আরো বলা হয়, স্মরণকালের ওই মধ্যযুগীয় বর্বরতার শিকার হয়ে সর্বস্ব হারিয়ে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের এখন মাথা গোঁজারও ঠাঁই নেই।
‘জেনোফোবিয়া’ আক্রমণ ও নিরসনকল্পে প্রবাসীদের করণীয় ও বর্জনীয় সম্পর্কে আগামী সোমবার সকাল ১০টায় সব প্রবাসী কমিউনিটি ও আফ্রিকায় অবস্থানরত বিভিন্ন দেশের হাইকমিশনারদের উপস্থিতিতে প্রিটোরিয়া টাউন হলে একটি প্রতিবাদ সভার আয়োজন করা হয়েছে। ‘আফ্রিকান ন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম’ আয়োজিত ওই আলোচনা সভায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এমনকি স্থানীয় ‘বাংলাদেশ পরিষদ’-এর কোনো সংগঠকও উপস্থিত থাকছে না বলে অভিযোগ করা হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে জোহানেসবার্গ থেকে মোহাম্মদ রাসেল ফেসবুকে বলেন, ওই আলোচনা সভায় আমাদের হাইকমিশনার কিংবা বাংলাদেশ পরিষদের কেউই থাকবে না বলে জানিয়েছেন। কিন্তু কেন? আমরা ভুক্তভোগীরা এর জবাব চাই। আমাদের বিপদের দিনে কেন আমাদের স্থানীয় অভিভাবকদের কাছে পাবো না? এখানে আমাদের দান কিংবা করুনার প্রশ্ন নয়, এটি আমাদের অধিকার। বাংলাদেশ পরিষদ ও বাংলাদেশ হাইকমিশনারের এই ভাঁড়ামি আমরা মানি না, মানবো না।