মৌলভীবাজারে মাদক বহনকারী গাড়ি চাপায় মহিলার মৃত্যুসহ ৭ জন আহত

এসএচৌধুরী, মৌলভীবাজার :: মৌলভীবাজারে মাদক বহনকারী গাড়ি চাপায় এক মহিলার মৃত্যুসহ একই পরিবারের পাঁচজন আহত হয়েছে। জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার ৪ নং শমশেরনগর ইউপির মৌলভীবাজার সড়কে গতকাল সন্ধ্যায় এ ঘটনাটি ঘটে। পুলিশ ৭ বোতল ফেন্সিডিলসহ জেলা সদরের  অরেঞ্জ টিলার মৃত ইসমাইল মিয়ার ছেলে  জাহিদ ইসলাম শিমুল (২৫) কে আটক করলেও অন্যদের আটক করতে পারেনি। পৃথকভাবে বিশেষ ক্ষমতা আইনে ডিবি পুলিশ একটি ও নিহতের ভাই বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। সূত্র জানায়, গতকাল (বৃহস্পতিবার) ইফতারের কিছু আগে শমশেরনগরের মৌলভীবাজার সড়কের ফারুকের বাসার সামনে মাদকভর্তি একটি প্রাইভেট কার দ্রুত গতিতে যাওয়ার সময়ে ফারুকের  পরিবারের পাঁচজন আহতসহ আলেয়া (৩৫)  নামীয় ডেকোরেটর মহিলা কর্মী গাড়ির চাপায় ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। স্থানীয় জনতা গাড়ি আটক করে আরোহীদের মারপিট করে। পরবর্তীতে স্থানীয় পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে মাদকসহ গাড়ী ও আরোহীদের আটক করে পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে যায়। সূত্র আরো জানায়, ঘটনার পর পুলিশের সাথে দফারফা করে গাড়ীর চালক ও মুল হোতা ছাড়া পেয়ে যায়। তবে স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়ির (আইসি) রফিক সত্যতা নিশ্চিত ও পুলিশের সাথে দফারফা অস্বীকার করে বার্তা বাংলার এ প্রতিনিধিকে বিষয়টির ব্যাপারে বলেন, একটি তদন্তকাজ শেষে মুন্সীবাজার থেকে ফিরছিলাম পথিমধ্যে ফারুকের বাসার সামনে একটি মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহীসহ এক বৃদ্ধ পথচারী আহত হয়ে পড়ে আছে দেখে সেখানে নেমে আহত দুজনকে মেডিকেলে পাঠিয়ে দাঁড়ানোবস্থায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটে, তাই আমি এ দুর্ঘটনাস্থলেও ছিলাম। দুর্ঘটনার পরপর গাড়ির তিন আরোহীরা দৌড়ে পালানোর চেষ্ঠা করলে আমি দৌড়িয়ে একজনকেসহ কুমিল্লা খ ০৫-০০১২ নাম্বারের একটি প্রাইভেট কার মাদকসহ আটক করি এবং আহত মহিলা আলেয়াকে উদ্ধার করে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয় এবং রাত্র সাড়ে নয়টায় সে (আলেয়া) মারা যায়। আরোহীদের মারধরের ব্যাপারে তিনি বলেন, অনেক লোকজন ছিল, কারা মেরেছে,আমি বলতে পারবনা বলে আরো বলেন, যেহেতু ৭ বোতল মাদক ফেন্সিডিল পাওয়া গেছে তাই মৌলভীবাজার ডিবি পুলিশ মামলাটি পরিচালনা করছে আর নিহত মহিলার ভাই রজব বাদী হয়ে একটি দুর্ঘটনা মামলা করাতে দুর্ঘটনাটির মামলা আমি পরিচালনা করছি।  এক প্রশ্নোত্তরে তিনি (রফিক) বলেন, ডিবি পুলিশের ধাওয়া খেয়ে প্রাইভেট কারটি দ্রুত পালানোর চেষ্ঠাকালে এ দুর্ঘটনা ঘটায়। ডিবি পুলিশ ও পুলিশ মামলা রয়েছে বিধায় আটককৃত গাড়িটি দু জায়গা থেকে জামিন নিতে হবে। মাদক বহনকারী আটক প্রাইভেট কারটির মালিকের সন্ধান পাওয়া ও গাড়ির ব্লুবুক পাওয়া যায়নি বলেও তিনি জানান।
অপরদিকে মৌলভীবাজার ডিবি পুলিশের অমূল্য কুমার চৌধুরী সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বশীল  ডিবি পুলিশের কাছে ৭ বোতল ফেন্সিডিলসহ একজনকে হস্তান্তর করে এবং আটককৃতের বিরুদ্বে বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫(বি) ধারায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ চক্রের মুল হোতা এবং শমশেরনগরে এ সিন্ডিকেটের সাথে কারা জড়িত আটককৃতের কাছ থেকে এ বিষয়ে কোনো তথ্য উদঘাটন সম্ভব হয়েছে কিনা? এমন এক প্রশ্নোত্তরে তিনি (অমূল্য কুমার চৌধুরী) বলেন, এটা তদন্তাধীন ব্যাপারে এখন তো আপনাকে বলা যাবেনা।
দুর্ঘটনাস্থলের আশপাশে বসবাসকারী কয়েকজনকে আলাপ করতে দেখা গেছে, দুর্ঘটনাকবলিত আটক গাড়িটি দীর্ঘদিন যাবৎ নিরাপদে নির্বিগ্নে শমশেরনগর থেকে জেলা সদর মৌলভীবাজারে মাদকদ্রব্য বহন করে আসছে। এ মাদক ব্যবসার সাথে স্থানীয় শমশেরনগরের একটি সিন্ডিকেট জড়িত যার নেতৃত্বে শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদের সরকারদলীয় প্রভাবশালী এক জনপ্রতিনিথি রয়েছেন বলেও শোনা যায়।
উল্লেখ্য নিহত আলেয়ার একমাত্র ছেলে একবছর (কম-বেশি ) আগে শমশেরনগরের মোকামবাজার এলাকায় খুন হয়।