বার্তাবাংলা ডেস্ক »

grameen bankবার্তাবাংলা রিপোর্ট :: গ্রামীণ ব্যাংক কর্মচারী সমিতির সভাপতি মো. সামশুল আলম বলেছেন, আমরা সবাই জানি সারা দুনিয়ার ব্যাংকগুলোর মধ্যে একমাত্র নোবেল বিজয়ী ব্যাংক “গ্রামীণ ব্যাংক”। নোবেল বিজয়ী এই ব্যাংকে চাকুরী করে আমরা নিজেদেরকে গর্বিত মনে করছি, তেমনি ব্যাংকের মালিকেরাও এই ব্যাংকের মালিক হয়ে নিজেদেরকে গর্বিত মনে করছেন। তাদের মালিকানাধীন এ ব্যাংক নোবেল বিজয়ী। যে মানুষটি এই ব্যাংক সৃষ্টি করে দেশে ও দেশের মানুষের গর্বের স্থান তৈরি করে দিয়েছেন, তাঁকে দেশবাসি সারা জীবন ভর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ রাখবে। স্রষ্টা তাঁর সৃষ্টিকে যতটা ভালবাসে, তার চেয়ে বেশী আর কেউ ভালবাসতে পারেনা। সৃষ্টির কাছ থেকে স্রষ্টাকে কখনোও পৃথক করা যায় না।
বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা ও মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পারলাম গ্রামীণ ব্যাংক কমিশন চুড়ান্ত রিপোর্ট জমা দেবেন। কমিশনের চুড়ান্ত রিপোর্ট বাতিলের দাবিতে প্রধান কার্যালয়ের ন্যায় সারা দেশের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী আজ কালো ব্যাজ ধারন করেছে। মাননীয় অর্থমন্ত্রী আমাদের প্রাণপ্রিয় এই ব্যাংকটির ভবিষ্যত উপায় খুঁজে বের করার জন্য কমিশন গঠন করে দিলেন। আমাদের জানা মতে দেশে অনেক সমস্যা বিদ্যমান। এতসব সমস্যার চেয়ে গ্রামীণ ব্যাংকে কি এমন সমস্যা যা তার কাছে এতটা গুরুত্ব পেল? কারো উপযাচক হয়ে কেউ উপকার করতে আসলে তখন আমাদের ভয় হয়। যাত্রাকালে অপরিচিত লোক যদি কিছু খাওয়ানোর জন্য জোরাজুরি করলে তখন মনে হয় এটা অজ্ঞান পার্টির লোক। আমরা চাই না, সহযোগিতার নাম করে আমাদের প্রতিষ্ঠানের সব কিছু কেউ লুটেপুটে নিক। প্রায় তিন যুগ ধরে গ্রামীণ ব্যাংক নিজের সমস্যা নিজে সমাধান করতে পারলে এখনো পারবে। সরকারি সহযোগিতার নামে আমাদের প্রাণ প্রিয় প্রতিষ্ঠানকে উনিশ টুকরা করার প্রয়োজন নেই। আমরা সবাই একত্রে আছি ভাল আছি। তারপরেও কেন আলাদা করতে হবে? এটা নষ্ট বা তি ছাড়া এর কোন কারণ আমরা দেখি না। সম্মানিত অর্থমন্ত্রী মহোদয়ের এতমূল্যবান সময় এই ব্যাংকটার পিছনে ব্যয় করার কারণটা কী? মালিকরা ও কর্মচারীরা কেউতো সরকার বা মন্ত্রী মহোদয়ের কাছে কোন সহযোগিতা চায়নি। গ্রামীণ ব্যাংক সরকারি করণ না করে, দেশের স্কুল কলেজ মাদ্রাসাসহ সম্মানিত শিক, যাঁরা আন্দোলন করছে সরকারি করণের জন্য প্রয়োজনে তাদেরকে সরকারি করণ করুন। তাতে দেশের মানুষ খুশি হবে। আমাদের জীবন থাকতেও এ ব্যাংক সরকারি করণ বা উনিশ টুকরো হতে দেব না এবং শেয়ারের অংশ বর্তমানে যা আছে তা পরিবর্তন হতে দেবনা। আমাদেরকে এতো ছোট ভাবার কোন কারণ নেই। আমরা মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়কে বলতে চাই আপনি যদি সত্যি বাংলাদেশের ভালো চান, দেশের গরীব মানুষের ভাল চান, তাহলে সাংবাদিক সম্মেলন করে আপনাদের গঠিত গ্রামীণ ব্যাংক কমিশনের চুড়ান্ত রিপোর্ট বাতিল করুন। আর যদি না করেন, তাহলে দেশের চার কোটি মানুষ যাঁরা এই ব্যাংকের সাথে জড়িত তাঁরা সবাই একত্রে আন্দোলন করে এটা বুঝিয়ে দেবে যে, আমরা আপনাদের এই কমিশনের রিপোর্টের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। সারা দুনিয়ার মানুষ দেখবে, ইতিহাস হয়ে থাকবে – সরকারের এ সব তুঘলকি কর্মকান্ড।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »