বিচ্ছিন্ন ভাংচুর-সংঘর্ষ, ককটেল বিস্ফোরণে চলছে ১৮ দলের হরতাল

বার্তবাংলা রিপোর্ট :: নারায়ণগঞ্জে বিএনপির দুটি মিছিলে বাধা দিয়েছে পুলিশ। এসময় হরতাল সমর্থনকারীদের সঙ্গে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় আহত হয়েছে ৫ জন। এছাড়া নগরীর খানপুরে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করার সময় কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে হরতাল সমর্থনকারীরা।

বুধবার সকাল আটটায় নারায়ণগঞ্জ- ডেমরা সড়কের ওপর পেট্রোল ঢেলে আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভকারীরা। এসমঢ তারা সরকার বিরোধী শ্লোগানের পাশাপাশি কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

অন্যদিকে, ভোর ৬টায় তোলারাম কলেজের সামনে যুবদল একটি মিছিল বের করে। এসময় পুলিশ তাদের বাধা দিলে তারা কলেজের ভেতরে ঢুকে পুলিশকে লক্ষ করে ইট পাটকেল ছুড়তে থাকে। পরে সেখান থেকে তারা পালিয়ে যায়। এরপর ভোর ৭টার দিকে নগরীর পাইকপাড়া থেকে মহানগর বিএনপি একটি মিছিল করে নিমতলীতে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে। এখানেও পুলিশ ধাওয়া করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

এদিকে, হরতালের শুরুতে চাঁদপুর-কুমিল্লা মহাসড়কের গোসাইরহাট এলাকায় হরতাল সমর্থকরা কমপক্ষে ৩০টি যানবাহন ভাংচুর করেছে। পিকেটিংয়ের সময় ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।
বুধবারের সকালের দিকে শহরের বিভিন্ন সড়কে গাছ ফেলে এং টায়ার জ্বালিয়ে পিকেটাররা অবরোধ তৈরি করে। পরে পুলিশ এসে এগুলো সরিয়ে ফেলে। কমসংখ্যক গাড়ি এবং রিকশা চলাচল করলেও ট্রেন ছাড়া বন্ধ রয়েছে সব ধরনের দূর পাল্লার যান।

ময়মনসিংহে সকালে হরতাল সমর্থনে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জেলা বিএনপি ও এর অংগ সংগঠন। মিছিলটি নতুন বাজার মোড়ে আসলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। পরে সবাই দলীয় কার্যালয় ফিরে যায়। এদিকে শহরের সানকিপাড়ায় টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে হরতাল সমর্থনকারীরা। এসময় একটি অটোরিকশায় ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগও করে তারা। এছাড়া নগরীতে আর কোনো সহিংসতার খবর পাওয়া যায়নি।