বার্তাবাংলা ডেস্ক »

 

bangladesh & malaysiaবার্তবাংলা রিপোর্ট :: সাউথ সাউথ বা দক্ষিণ দক্ষিণ দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা ও বাণিজ্য বাড়াতে চায় মালয়েশিয়ার সরকার এবং দেশটির বেসরকারি খাত। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের সঙ্গে বিনিয়োগ, বাণিজ্য ও টেকনোলজির আদান-প্রদান বাড়াতেও তারা আগ্রহী রয়েছে বলে জানিয়েছেন মালয়েশিয়ার সফররত একটি ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দল। গতকাল ঢাকা চেম্বার (ডিসিসিআই) ও ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনের (এফবিসিসিআই) সঙ্গে তাদের কার্যালয়ে পৃথক দুটি বৈঠকে এ কথা জানিয়েছেন এসিসিসিআইএমের (অ্যাসোসিয়েটেড চাইনিজ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি অব মালয়েশিয়া) এক্সিকিউটিভ অ্যাডভাইজার ও চেয়ারম্যান তানশ্রী দাতো সুং সিউ হুং। অনুষ্ঠানে ঢাকা চেম্বার ও এফবিসিসিআইয়ের পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন।
তানশ্রী দাতো তার বক্তব্যে বলেন, মালয়েশিয়া একসময় কৃষিভিত্তিক অর্থনীতির দেশ ছিল। তবে বর্তমানে দেশটি শিল্প খাতনির্ভর। তাই আমাদের উদ্যোক্তারা শিল্প খাতে বিনিয়োগের মাধ্যমে টেকনোলজি ও অভিজ্ঞতার আদানপ্রদান করতে আগ্রহী। মালয়েশিয়ার ১৭ সদস্যের ওই প্রতিনিধি দলের সদস্যরা বাংলাদেশের উদ্যোক্তাদের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করে বি টু বি (ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে) বৈঠক করেন। এসব বৈঠক উদ্যোক্তাদের জন্য ইতিবাচক হবে বলে মনে করছেন তানশ্রী দাতো।
ঢাকা চেম্বারের সঙ্গে বৈঠকে চেম্বারের সভাপতি মো. সবুর খান বলেন, বাংলাদেশের চমড়া ও চামড়াজাত পণ্য, জ্বালানি ও বিদ্যুত্, খাদ্যপণ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, গ্যাসচালিত শিল্পকারখানা, টেলিযোগাযোগ এবং কৃষিভিত্তিক শিল্পে মালয়েশিয়ার ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগ করতে পারেন। বাংলাদেশ থেকে পণ্য আমদানি বাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে সবুর খান বলেন, বর্তমানে মালয়েশিয়ার সঙ্গে প্রায় ১ হাজার ৩৪৩ মিলিয়ন ডলার। এ অবস্থায় বাণিজ্যে ভারসাম্য আনা সম্ভব হলে উভয় দেশের জন্যই তা ইতিবাচক হবে। এফবিসিসিআইয়ের সঙ্গে বৈঠকে এফবিসিসিআইয়ের সহ-সভাপতি মনোয়ারা হাকিম আলী বলেন, বাংলাদেশের পর্যটন শিল্প এবং স্বাস্থ্য খাতসহ বিভিন্ন খাতে মালয়েশিয়ার উদ্যোক্তারা বিনিয়োগ করতে পারেন। এ সময় তিনি মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিক নেওয়ার ব্যাপারে প্রতিনিধি দলকে আহ্বান জানান।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »