রাজধানীতে বিক্ষিপ্ত মিছিল-ককটেল বিস্ফোরণ

বার্তাবাংলা ডেস্ক :: মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত জামাত নেতা কামারুজ্জামানের মৃত্যুদণ্ডের রায়ের প্রতিবাদে রোববার সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালন করছে জামাতে ইসলামী। হরতাল সমর্থকরা সকালে মীর হাজীরবাগে একটি ট্রাকে আগুন দিয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে গলির ভেতরে বিক্ষিপ্ত মিছিল ও পুরান ঢাকায় হাতবোমা বিস্ফোরণের খবর পাওয়া গেছে।

জামাত-শিবিরের ডাকা হরতালে সংখ্যায় কম হলেও ভোর থেকেই রাজধানীর সড়কগুলোতে রিকসা ও সিএনজিসহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন চলাচল করছে।

রাজধানীর মিরপুর ও যাত্রাবাড়িতে হরতালের সমর্থনে মিছিল করেছে জামাত-শিবির কর্মীরা। হরতাল সমর্থকরা মীর হাজীরবাগে একটি ট্রাকে আগুন দিয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে গলির ভেতরে বিক্ষিপ্ত মিছিল ও পুরান ঢাকায় হাতবোমা বিস্ফোরণের খবর পাওয়া গেছে।

মিরপুর বাঙলা কলেজ, ধোলাই খাল, বকশি বাজার এলাকায় শিবির কর্মীরা সকালে হরতালের সমর্থনে মিছিল বের করে। সকাল পৌনে ৭টার দিকে ধোলাইখাল এলাকায় দুটি ককটেল ফাটানো হয়।

হরতালের কারণে গাবতলী, মহাখালী ও সায়েদাবাদ থেকে দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে রেল ও লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

এদিকে, যে কোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে রাজধানীজুড়ে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোতে অবস্থান নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

বনশ্রীতে হরতালে সমর্থনে মিছিল ও পিকেটিং করেছে জামায়াত-শিবির। এ সময় কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায় তারা। পরে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে দুইজনকে আটক করে পুলিশ।

সকাল সাড়ে ৬ টার দিকে রামপুরা থেকে শিবিরের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ডা. ফখরুদ্দিন মানিকের নেতৃত্বে জামায়াত-শিবিরের ১৫-২০ কর্মীর একটি মিছিল বনশ্রী আইডিয়াল স্কুলের সামনে পুলিশের বাধার মুখে পড়ে। এ সময় তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুরের চেষ্টা চালায়।পরে সেখান থেকে একজন জামায়াত ও একজন শিবির কর্মীকে আটক করে পুলিশ।

মিছিলে উপস্থিত ছিলেন শিবিরের সাবেক দপ্তর সম্পাদক আতাউর রহমান সরকার, জামায়াত নেতা হাসান ইমান, কাদের মনির আহমেদ, শিবির নেতা মামুন, ফয়সাল প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি আব্দুল কাদের মোল্লার ফাঁসির রায়ের বিরুদ্ধে রোববার সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডাকে জামায়াত।

এছাড়া্ও পুরান ঢাকার ধোলাইখালে রোববার সকাল ৮টার দিকে জগন্নাথ বিশ্ব বিদ্যালয়েরে ছাত্রশিবিরের ব্যানারে কয়েকজন শিবিরকর্মী ঝটিকা মিছিল করেছে।

এসময় অ্যাম্বুলেন্সের শব্দ শুনে চারটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যায় শিবিরি কর্মীরা।

সূত্রাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, হরতালকারীরা আতঙ্ক সৃষ্টি করার জন্য কয়েকটা পটকা ফাটিয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হওয়ার আগেই তারা পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

এর আগে সকালে বকশীবাজার এলাকায় মাদরাসা-ই-আলিয়ার ছাত্র শিবিরের ব্যানারে গলিপথে ঝটিকা মিছিল বের করা হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হওয়ার আগেই তারা পালিয়ে যায়।