বাংলাদেশে আসছে থাইল্যান্ডের বিশাল বিনিয়োগ

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ

রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকলগুলোর আধুনিকায়নের জন্য অর্থায়নের বিষয়ে সম্মত হয়েছে জাপান ব্যাংক ফর ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন (জেবিআইসি) এবং এক্সিম ব্যাংক অফ থাইল্যান্ড।

প্রতিষ্ঠান দুটি রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকলের আধুনিকায়ন, পণ্য বৈচিত্র্যকরণ এবং উন্নত ইক্ষুজাত আবাদে বাংলাদেশি চাষীদের প্রশিক্ষিত করতে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেবে।

থাইল্যান্ড সফররত শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূনের সঙ্গে বৈঠককালে প্রতিষ্ঠান দুটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সম্মতির কথা জানান।

এক্সিম ব্যাংক অফ থাইল্যান্ডের কেন্দ্রিয় কার্যালয় এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে জাপান ব্যাংক ফর ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশনের মহাপরিচালক নাওমি তামাকি, এক্সিম ব্যাংক অফ থাইল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট পিসিট সেরিউইওয়াততানে,জেবিআইসির পরিচালক ইয়ুসিশো ওকাওয়া, এক্সিম ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট কানিকনান রেমিংওন, বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের (বিএসএফআইসি) চেয়ারম্যান অজিত কুমার পাল এফসিএ, শিল্প মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব মো. জিয়াউর রহমান খান, মন্ত্রীর একান্ত সচিব মো. আবদুল ওয়াহেদ, শিল্প প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব শাহ্ মোমিন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক ওয়াহিদা মুসাররত অনীতা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকলগুলোর আধুনিকায়ন, সম্প্রসারণ ও পণ্য বৈচিত্র্যকরণের বিষয়ে চিনি শিল্পখাতে থাইল্যান্ডের খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠান সুটেক ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেডের কারিগরি প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা হয়। এ সময় জেবিআইসি এবং এক্সিম ব্যাংক অফ থাইল্যান্ডের কর্মকর্তারা এ কারিগরি প্রস্তাবে সন্তোষ প্রকাশ করেন। এর প্রেক্ষিতে তারা বাংলাদেশে চিনি শিল্পের উন্নয়নে বিনিয়োগের বিষয়ে সম্মতি জানান।

এ সময় শিল্পমন্ত্রী ব্যাংক দুটির কর্মকর্তাদের বিনিয়োগের বিষয়ে একটি সমন্বিত প্রস্তাব পেশের পরামর্শ দেন।

সমন্বিত প্রস্তাব পাওয়ার পর বাংলাদেশ সরকার এ বিষয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বাংলাদেশের চিনি শিল্পের আধুনিকায়নে বিনিয়োগের আগ্রহের জন্য তাদের ধন্যবাদ জানান। কৃষিভিত্তিক ভারি শিল্প হিসেবে চিনি শিল্পের উন্নয়নে বর্তমান সরকার অগ্রাধিকার দিচ্ছে। এ শিল্প খাতে বিনিয়োগে এগিয়ে আসলে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহায়তা প্রদান করা হবে উল্লেখ করেন তিনি।