মাহমুদ মনি, মাদ্রিদ (স্পেন) থেকে »

Dating App

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে মানবস্বাস্থ্যের ওপর বিরূপ প্রতিক্রিয়া উদ্বেগজনক পর্যায়ে পৌঁছেছে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মূল প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। এতে বলা হয়েছে, বিশ্ববাসী এখনই সচেতন না হলে স্বাস্থ্যঝুঁকি আগামী এক দশকে তিনগুণ বেড়ে যাবে। যা মানব সভ্যতার উপর মারাত্বক বিপর্যয়ের কারণ হয়ে দাঁড়াবে।এমন আশংকা বিশ্বের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের।

বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে গতকাল আলোচনার একটি বড় ইস্যু ছিল গ্লোবাল ক্লাইমেট এন্ড হেলথ সামিট। এই ইস্যুতে স্পেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, গ্লোবাল ক্লাইমেট এন্ড হেলথ এলায়েন্স, ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া, হার্ভাড ও মাদ্রিদ বিশ্ববিদ্যালয় যৌথভাবে সেমিনার করে।

এতে বিশ্বের পাঁচ শতাধিক নীতিনির্ধারক, গবেষক ও জলবায়ু বিষয়ক এক্টিভিস্টরা অংশ নেন। সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্পেন, টোবালো, নাইজেরিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরিচালক, গ্লোবাল ক্লাইমেট এন্ড হেলথ এলায়েন্সের নির্বাহী পরিচালক ও অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

স্বাস্থ্য বিষয়ক এই সম্মেলনে বলা হয়েছে, প্যারিস চুক্তির সিদ্ধান্ত অনুযায়ি অভিযোজন ক্ষমতা না বাড়ানো গেলে এবং উন্নত দেশগুলোর কার্বণ নিঃসরন প্রতিশ্রুতি অনুযায়ি উল্লেখযোগ্য হারে না কমানো গেলে বিশ্বের তিন বিলিয়ন মানুষ জলবায়ু পরিবর্তনজনিত স্বাস্থ্য বিপর্যয়ের শিকার হবে।

এই সম্মলনে বিশ্বের পাঁচটি অঞ্চলের পাঁচজন যুব প্রতিনিধি তাদের উদ্বেগ কথা তুলে ধরেন। সম্মলনে আদিবাসীদের পক্ষ থেকে বলা হয়, তাদের অভিজ্ঞাতাকে কাজে লাগিয়ে ‘মাদার আর্থ’কে বাঁচানোর জন্য পানি, খাবার এবং পরিবেশকে সমন্বয়ের মাধ্যমে স্বাস্থ্য সুরক্ষা করা না গেলে এক সময় মানবজাতি বিলুপ্ত হবে বলে কানাডিয়ান আদিবাসী নেতার দেয়া বক্তব্য সর্বোচ্চ গুরুত্ব পায়।

এই সম্মলনে পাঁচটি প্রতিপাদ্য বিষয়ের উপর আলোচনা হয়। এতে একটি বিষয় ছিল হেলথি পিপল হেলথি প্লেসেস শীর্ষক আলোচনায় বাংলাদেশের পক্ষে প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (পরিকল্পনা গবেষণা) অধ্যাপক ডা. ইকবাল কবীর। তার প্রতিবেদনে জলবায়ু পরিবর্তন ও বায়ু দূষণজনিত কারণে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে অসংক্রামক ব্যাধি বিশেয করে ফুসফুস ও হ্দ রোগের হার বিশ্বের মধ্যে সর্বাধিক বলে জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ঢাকা ও দিল্লীতে বায়ু দূষণের হার বিশ্বের মধ্যে সর্বাধিক। যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সহনীয় মাত্রার চেয়ে ছয় গুণ বেশি।

শিশুদের শ্বাসতন্ত্রের রোগ উদ্বেগজনক হারে বেড়ে যাওয়ায় ২০৫০ সালের পর পূর্ণ বয়স্ক মানুষের শারীরিক সক্ষমতা ও উৎপাদন ক্ষমতা কমে যাবে।

জলবায়ু পরিবর্তনজনিত স্বাস্থ্য অভিযোজন ক্ষমতা বৃদ্ধিতে জনপ্রতি ৩০ ডলার স্বাস্থ্যখাতে বিনিয়োগ করলে জনপ্রতি ২০০ ডলারের উৎপাদন কক্ষমতা বাড়ানো যাবে বলে গবেষণা প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে।

দিনব্যাপী স্বাস্থ্য সম্মেলন শেষে মূল জলবায়ু সম্মেলনে উপস্থাপনের জন্য একটি কল ফর অ্যাকশন তৈরি করা হয়েছে। এতে আগামী বছর বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলন মূল ফোকাসে রাখার আহ্বান জানানো হয়েছে।

Dating App
শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »