জটিল হচ্ছে জাবি’র পরিস্থিতি, শিক্ষকের অপসারন দাবি » Leading News Portal : BartaBangla.com

বার্তাবাংলা ডেস্ক »

IMG_4399 আহসান হাবীব, জাবি :: পহেলা বৈশাখে ছাত্রী লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় ক্রমেই জটিল হচ্ছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিস্থিতি। একদিকে নিপীড়নের শাস্তি দাবিতে ছাত্রীদের আন্দোলন, অন্যদিকে শিক্ষার্থীকে মারধর ও নির্যাতনের অভিযোগে শিক্ষকের অপসারন দাবিতে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি জমা দিয়েছে ‘সচেতন শিক্ষার্থীবৃন্দ’ ব্যানারের ছাত্ররা।

উত্থাপিত ৩ দফা দাবি আদায়ে মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিনের মত বিক্ষোভ অব্যাহতরেখেছে বিভিন্ন হলের ছাত্রীরা। এদিন দুপুর সাড়ে ১২ টায় সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে প্রায় ৩ শতাধিক ছাত্রী। তাদের সাথে প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনগুলো যোগ দেয়। মিছিলটি বিভিন্ন অনুষদ ভবন হয়ে পরিবহন চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। মিছিল থেকে ৩ দফা দাবি আদায়ের শ্লোগান দেয় তারা।

এছাড়া লাঞ্ছিত দুই ছাত্রী বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী হওয়ায় মৌন মিছিল করেছে ঐ বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এতে বিভাগের শিক্ষকরা সহ ৩ শতাধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। মিছিলটি ঐ বিভাগ থেকে শুরু হয়ে আবার একই স্থানে এসে শেষ হয়।
IMG_4392
এদিকে শিক্ষার্থীকে মারধর ও নির্যাতনের অভিযোগে উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক আলী আকন্দ (মামুন) এর অপসারন দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে ‘সচেতন শিক্ষার্থীবৃন্দ’ ব্যানারে বিভিন্ন হলের ছাত্ররা। একইদিন সকাল ১০ টায় তারা শহীদ মিনার চত্বরে একত্রিত হয়ে মিছিল সহ প্রশাসনিক ভবনে যায়। এছাড়া অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ জমা দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। দাবি আদায়ে প্রশাসনকে ৪৮ ঘন্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে তারা।

তাদের সাথে কথা বলে জানা যায় পহেলা বৈশাখে আ ফ ম কামালউদ্দিন হলের শোভাযাত্রা থেকে দুই অপরিচিত মেয়েকে রঙ দেয়া নিয়ে সৃষ্ট অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে এগিয়ে যান একই হলের ছাত্রলীগ কর্মী সুবল দেবনাথ আকাশ ( ইংরেজি,৩৭ তম ব্যাচ)। তখন সেখানে উপস্থিত অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী আকন্দ ঐ শিক্ষার্থীকে চড়-থাপ্পড় ও লাথি দেন বলে অভিযোগ করেন তারা।

এছাড়া ছাত্রদলের ডাকা ২ দিনের ধর্মঘট ও ভাংচুরের প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ।

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

আমি ফারজানা চৌধুরী তন্বী। লেখালিখি করি ফারজানা তন্বী নামে। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করার পর আজ প্রায় পাঁচ বছর ধরে লেখালিখির সঙ্গেই আছি। বার্তাবাংলা’য় কাজ করছি সিনিয়র রিপোর্টার হিসেবে। আমার বিশেষ আগ্রহের ক্ষেত্র ফিচার, প্রযুক্তি আর লাইফস্টাইল। ভালো লাগে ভ্রমণ, বইপড়া, বাগান করা আর ইন্টারনেট নিয়ে পড়ে থাকা :)

মন্তব্য করুন »