কথা কাটাকাটির জেরে ‍কুপিয়ে গুরুতর জখম

চট্টগ্রামের চন্দনাইশে টিউবয়েলের পানি সংগ্রহের সময় কথা কাটাকাটির জের ধরে এক ব্যক্তিকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে গুরুতর আহত করেছে স্থানীয় সন্ত্রাসীরা। চন্দনাইশের উত্তর বরকলের সর্দারপাড়া এলাকায় ২৪ মে রাতে ওই ঘটনা ঘটার পর ভিকটিম দরিদ্র আজম খান থানায় মামলা করতে গেলেও স্থানীয় প্রভাবশালীদের চাপে তা নিতে অস্বীকৃতি জানাচ্ছে চন্দনাইশ থানা পুলিশ।

ভুক্তভোগীর অভিযোগ, ওইদিন রাত প্রায় সাড়ে ১০টার দিকে টিউবওয়েলের পানি সংগ্রহ নিয়ে বাচ্চাদের মধ্যে সামান্য ঝগড়া হয়। এ সময় কথা কাটাকাটির জের ধরে স্থানীয় সন্ত্রাসী ফরিদ, আরাফাত, ফোরকান, ছালামত উল্লাহ গং মিলে ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা দিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে আজম খানকে।

স্থানীয়রা জানান, ঘটনার পরপরই ভিকটিমকে নিয়ে প্রতিবেশীরা থানায় যান মামলা করতে। কিন্তু পুলিশ মামলা নিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে তাকে হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেয়। এরপর তাকে চন্দনাইশ উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু ঘটনার ৩-৪ দিন অতিবাহিত হওয়ার পরও ফরিদ গংদের প্রভাব-প্রতিপত্তির কারণে ভিকটিম ও তার পরিবারের কোনো মামলা নিচ্ছে না চন্দনাইশ থানা পুলিশ।

হামলার শিকার আজম খানের পরিবার বলছে, সন্ত্রাসীদের উপর্যুপরি হুমকিতে ভিকটিম ও তার পরিবার-পরিজন বর্তমানে ভীতসন্ত্রস্ত অবস্থায় একপ্রকার গৃহবন্দি হয়ে আছে। ওই ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে সুষ্ঠু বিচারের জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ উর্ধ্বতন প্রশাসনের দ্রুত হস্তক্ষেপ চায় পরিবারটি।

প্রসঙ্গত, আনুমানিক ৪৩ বছর বয়স্ক আজম খান পেশায় গাড়িচালক। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি হওয়ায় তার পরিবারের সদস্যদের মুখে দুবেলা খাবার তুলে দেওয়াও অসম্ভব হয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আজম খানের এক প্রতিবেশী।