বার্তাবাংলা ডেস্ক »

কলকাতার মাঠে খেলতে গিয়ে তাদেরকে ভূপাতিত করেই বাড়ি ফিরেছে দিল্লি ক্যাপিট্যালস। ওপেনার শিখর ধাওয়ান অল্পের জন্য সেঞ্চুরিবঞ্চিত হলেও ৭ বল হাতে রেখে ৭ উইকেটের সহজ জয়ই পেয়েছে তার দল।

ইডেন গার্ডেনসে আগে ব্যাট করে ১৭৮ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর দাঁড় করায় কলকাতা। সেটিকে মামুলি সংগ্রহ বানিয়ে ছাড়েন শিখর ধাওয়ান-রিশাভ প্যান্টরা। রিশাভ ৪৬ করে আউট হলেও ধাওয়ান অপরাজিত থাকেন ৯৭ রানে। দলকে জয়ের বন্দরে নিয়েই মাঠ ছাড়েন তিনি।

রান তাড়া করতে নেমে ৩ ওভারে ৩২ রান যোগ করেন দুই ওপেনার পৃথ্বি শ এবং শিখর ধাওয়ান। পৃথ্বি ৭ বলে ১৪ রান করে ফিরে যান। অধিনায়ক শ্রেয়াস আইয়ার আউট হন ৬ বলে ৬ রান করে। এরপরই ম্যাচের দখল নিজেদের হাতে নিয়ে নেন প্যান্ট ও ধাওয়ান।

দুজনের তৃতীয় উইকেট জুটিতে ১০৫ রান পায় দিল্লি। এতেই নিশ্চিত হয়ে যায় দলের জয়। দলীয় ১৬২ রানের মাথায় সাজঘরে ফেরার আগে ৪ চার ও ২ ছয়ের মারে ৩১ বলে ৪৬ রান করেন প্যান্ট। পরে ৬ বলে ১টি করে চার-ছক্কার মারে ১৪ রান করেন কলিন ইনগ্রাম। ওপেনার শিখর ধাওয়ান ৯৭ রান করতে খেলেন ৬৩ বল, হাঁকান ১১টি চার ও ২টি ছক্কা।

এর আগে নিচের দিকে নেমে আন্দ্রে রাসেল তাণ্ডব দেখাবেন, এ যেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের ইনিংসের নিয়মিত চিত্র হয়ে গেছে। শুক্রবার দিল্লি ক্যাপিট্যালসের বিপক্ষেও নিজের রুদ্রমূর্তি দেখালেন ক্যারিবীয় এই অলরাউন্ডার। আর শুভমান গিল ওপেনিংয়ে নেমে খেলেন ঝড়ো এক ইনিংস।

এই দুজনের ব্যাটে চড়েই ঘরের মাঠ ইডেন গার্ডেনসে ৭ উইকেটে ১৭৮ রানের চ্যালেঞ্জিং পুঁজি দাঁড় করিয়েছে কলকাতা। টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই হোঁচট খেয়েছিল কলকাতা। ইনিংসের প্রথম বলেই সাজঘরে জো ডেনলি।

তবে শুভমান গিল বেশ ভালোভাবেই এগিয়ে নিয়েছেন দলকে। মাঝে তাকে সঙ্গ দিয়েছেন রবি উথাপ্পা। যদিও তিনি ৩০ বল খেলে ২৮ রানের বেশি করতে পারেননি। এরপর নীতিশ রানাও ফিরে যান ১২ বলে ১১ করে। ৩৯ বলে ৭ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় ৬৫ রানের ঝড়ো ইনিংস করে সাজঘরের পথ ধরেন শুভমান গিল।

কিন্তু রাসেল খেলেছেন তার নিজের মতোই। পাঁচ নাম্বারে নেমে ২১ বলে ৩ চার আর ৪ ছক্কায় ৪৫ রান করেন ক্যারিবীয় এই অলরাউন্ডার। আর শেষদিকে ৬ বলে ১৪ রানে অপরাজিত থাকেন পিযুষ চাওলা। দিল্লির পক্ষে ২টি করে উইকেট নেন কাগিসো রাবাদা, কেমো পল আর ক্রিস মরিস।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »