রাবিতে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার সংস্কারের দাবিতে ছাত্রলীগের মানববন্ধন

রাবিতে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার সংস্কারের

সাকিবুল ফারাবি, রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার সংস্কারসহ বই নিয়ে শিক্ষার্থীদের লাইব্রেরিতে প্রবেশের সুযোগ রাখার দাবিতে মানববন্ধন করেছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এ কর্মসূচি পালন করে তারা। এছাড়াও লাইব্রেরি সংস্কারের জন্য নয় দফা দাবি জানিয়ে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। তাদের দাবিগুলো হল- সপ্তাহের সাত দিন গ্রন্থাগার খোলা রাখা, গ্রন্থাগার সংস্কার করে আসন সংখ্যা বৃদ্ধি, প্রতিদিন সকাল নয়টা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত লাইব্রেরি খোলা রাখা এবং শুক্রবার বিকেল তিনটা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত খোলা রাখা। প্রতিবছর নতুন বই সংযোজন, যুগোপযোগী ও মানসম্মতভাবে গ্রন্থাগারকে ডিজিটালাইসড করা, গ্রন্থাগারে আসন সংখ্যা বৃদ্ধি করা, সম্পূর্ণ গ্রন্থাগার শীততাপ নিয়ন্ত্রিত করা, দ্রুত গতির ইন্টানেট সার্ভিস এবং নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা। মানববন্ধনে রাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার শুধুমাত্র বিষয়ভিত্তিক পড়াশোনার জায়গা হতে পারে না। গ্রন্থাগারকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ হিসেবে কল্পনা করা হয়। এখান থেকে শিক্ষার্থীরা সব ধরনের শিক্ষা গ্রহণ করবে। হতে পারে সেটা একাডেমিক কিংবা চাকরির। তিনি বলেন, তবে দুঃখের বিষয় আমাদের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারকে একমুখী শিক্ষার উপযোগী করে রাখা হয়েছে। আমরা চাই শিক্ষার্থীরা তাদের প্রয়োজনীয় বই নিয়ে গ্রন্থাগারে প্রবেশ করুক। আর এজন্য গ্রন্থাগারের আসন সংখ্যাও বৃদ্ধি করা হোক। কর্মসূচিতে ছাত্রলীগের অন্য নেতারা তাদের বক্তৃতায় বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নিজস্ব বই নিয়ে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে প্রবেশ করতে না পারায় তাদের হুমড়ি খেয়ে পড়তে হয় গ্রন্থাগারের বারান্দ্রায়। এতে ঠিক মতো পড়ালেখায় মনোনিবেশ করতে পারছে না শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে আমাদের জোর দাবি থাকবে তারা শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে যেন বই নিয়ে প্রবেশাধিকারের অনুমতি প্রদান করেন। রাবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু’র সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সহ-সভাপতি সাদ্দাম হোসেন, হাবিবুল্লা নিক্সন, যুগ্ম-সম্পাদক মো. সাব্বির হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক চঞ্চল কুমার অর্ক, ইমরান খান নাহিদ, ইমতিয়াজ আহমেদ, প্রচার সম্পাদক কামরুল হাসান, কলা অনুষদের সহ-সভাপতি আব্দুল লতিফ প্রমূখ।