সড়কে গণপরিবহন কম, নেই সু-প্রভাতও

ঢাকা

সু-প্রভাত পরিবহনের বাস চাপায় বিইউপি শিক্ষার্থী আবরার আহম্মেদ চৌধুরী নিহতের ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক গেট এলাকায় দিনভর রাস্তা অবরোধ করে আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থীরা। তাদের ঘোষিত ৮ দফা দাবি আদায়ে আজও (বুধবার) রাস্তায় নামার কথা রয়েছে। শিক্ষার্থীদের পূর্ব ঘোষিত এ কর্মসূচির ফলে ‘ঘাতক’ সু-প্রভাত পরিবহনের কোনো বাস আজ রাস্তায় নামেনি। এছাড়া অন্যান্য পরিবহনের যাত্রীবাহী বাসও কম চলছে। ফলে ভোগান্তিতে পড়েছেন অফিসগামী সাধারণ মানুষ।

রাজধানীতে সকাল ৯টা পর্যন্ত সদরঘাট থেকে গাজীপুরে চলাচলকারী সু-প্রভাতের কোনো বাস রাস্তায় দেখা যায়নি। বাসটি মালিবাগ, রামপুরা, বাড্ডা, নতুন বাজার, কুড়িল বিশ্বরোড হয়ে চলাচল করতো। পাশাপাশি এই রুটে অন্য গণপরিবহনও তুলনামূলক কম চলছে। ফলে গণপরিবহন সঙ্কটে সীমাহীন ভোগান্তিতে পড়েছেন অফিসগামী সাধারণ মানুষ। দীর্ঘ সময় রাস্তায় দাঁড়িয়েও বাস পাচ্ছেন না তারা। দুই-একটি বাস আসলেও সেগুলোতে উঠতে পারছেন না যাত্রীরা।

অনেকে পায়ে হেঁটে, রিকশা বা সিএনজি চালিত অটোরিকশায় দ্বিগুণ ভাড়া দিয়ে অফিসে যাচ্ছেন। সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়েছেন নারী যাত্রী ও স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা। রাজধানী নতুন বাজার এলাকা থেকে উত্তরা যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছিলেন হাসিবুর রহমান নামের একজন বেসরকারি চাকরিজীবী।

তিনি বলেন, ছাত্র আন্দোলনের কারণে সড়কে গণপরিবহন কম, যে কারণে অফিস টাইমে ভোগান্তিতে পড়েছে মানুষ। দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকেও বাসে উঠতে পারছি না। যে দুই-একটি বাস আসছে সেগুলো আগে থেকেই যাত্রীতে ভরে আসছে, আমরা আর বাসে উঠতে পারছি না। সুযোগ বুঝে সিএনজি অটোরিকশা চালকরাও দ্বিগুণ ভাড়া হাঁকাচ্ছে।

এ রুটে চলাচলকারী রাইদা পরিবহনের বাস চালক মকলেসুর রহমান বলেন, গতকাল (মঙ্গলবার) বাস দুর্ঘটনায় ছাত্র নিহত হওয়ার ঘটনায় শিক্ষার্থীদের আন্দোলন করছে, যে কারণে বাস মালিকরা এ সড়কে বাস নামাতে ভয় পাচ্ছেন। তাই সকাল থেকে বাস কম।

গতকাল সু-প্রভাত পরিবহনের বাসচাপায় শিক্ষার্থী আবরার আহম্মেদ চৌধুরী নিহত হওয়ার ঘটনায় সংশ্লিষ্ট বাসের রেজিস্ট্রেশন (ঢাকা মেট্রো-ব-১১-৪১৩৫) বাতিল করেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। তবে শিক্ষার্থীদের দাবি সু-প্রভাত পরিবহনের রুট পারমিট বাতিল করতে হবে।

মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) সকাল ৭টার দিকে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন প্রগতি সরণী এলাকায় সু-প্রভাত (ঢাকা মেট্রো-ব-১১-৪১৩৫) বাসের চাপায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস (বিইউপি)-এর শিক্ষার্থী আবরার আহম্মেদ চৌধুরী মারা যান। পরে সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা ৮ দফা দাবি ঘোষণা করেন।