বার্তাবাংলা ডেস্ক »

TIB semenerবার্তাবাংলা ডেস্ক :: নির্বাচনকালীন সরকার ব্যবস্থা নিয়ে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের-টিআইবি দেয়া প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছে প্রধান দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে শনিবার মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় বিরোধী দলকে এ বিষয়ে সংসদে এসে আলোচনার আহ্বান জানিয়েছে আওয়ামী লীগ। আলাদা এক অনুষ্ঠানে এ প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে বিএনপি নেতা বলেন, আলোচনার জন্য সরকারকে আন্তরিক হতে হবে।

সুলতানা কামাল বলেন, ‘২টা বড় দল যাদেরকে নিয়ে আমরা এতো শঙ্কা প্রকাশ করছি এরা ২ জনই বা ২টা দলই নির্বাচন চাইবেন। নির্বাচন ছাড়া তারা কিন্তু রাজনীতিতে টিকে থাকতে পারবেন না। কাজেই নির্বাচন করার জন্য কখনো না কখনো তারা কোনো একটা সমঝতায় আসতে পারেন সে চেষ্টাটা নিজেরাই করবেন।’

অবাধ-নিরপেক্ষ ও সবার অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের লক্ষ্যে টিআইবি নির্বাচনকালীন সরকারের এমনই একটি রূপরেখা দেয়। তাদের প্রস্তাবনা অনুযায়ী এ সরকার ৯০ দিনের জন্য গঠিত হবে। এজন্য সংসদের মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার ৩০ দিন আগেই প্রধান ২ জোটের সমান সংখ্যক সংসদ সদস্যের ঐকমত্যে স্পিকার একটি কমিটি গঠন করবেন। এ কমিটিই নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধানসহ নির্বাচিত বা অনির্বাচিত ১১ সদস্যের মন্ত্রিসভা মনোনীত করবে।

নির্বাচনকালীন সরকার ব্যবস্থা নিয়ে টিআইবির প্রস্তাব নিয়ে সংসদে আলোচনা হতে পারে বলে মনে করেন আইন প্রতিমন্ত্রী কামরুল ইসলাম।

বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় তিনি বিরোধী দলকে এ বিষয়ে সংসদে এসে আলোচনার আহ্বান জানিয়ে আইন প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আগামী ২১ তারিখ সংসদ আমি দুই দলের প্রতি আহ্বান জানাতে পারি আপনা আপনারা ২১ তারিখের সংসদে আসুন এবং নির্বাচন নিয়ে যদি কোনো কথা থাকে জামাতের সঙ্গ পরিত্যাগ করে ও সন্ত্রাসের পথ পরিহার করে সংসদে আসুন আমরা আলাপ আলোচলার মাধ্যমে আগামীতে সুষ্ঠ নির্বাচন কিভাবে হয় সে বিষয়ে আমরা সবাই ঐক্যমতে পৌঁছাতে পারি। টিআইবি যে ফর্মুলা দিয়েছে সে ফর্মুলাকে সামনে রেখে আমরা সবাই আলোচনা করতে পারি।’

এদিকে, বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন টিআইবির এ প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ‘তাদের প্রস্তাবের মাধ্যমে আজকে প্রমাণিত যে তারাও মনেকরে এ দেশে দলীয় সরকারে অধীনে নির্বাচন হতে পারে না। আমরা আমাদের দল ও জোট থেকে এ কথা বলে এসে ছিলাম সে জন্য টিআইবিকে আমরা ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সরাকার দলের আন্তরিকতা ছাড়া কোনো প্রস্তাব কার্যকারি হতে পারে না। তেমনি ভাবে বিরোধীদলেরও সম্মতি ছাড়া এদেশে কার্যকর হবে না।’

তবে এজন্য আলোচনার দরকার এবং এর আগে নেতাকর্মীদের মুক্তি দিতে হবে বলেও জানান তিনি।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »