বার্তাবাংলা ডেস্ক »

Dating App

বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে প্রায় দেড় বছর ধরে জঙ্গিবাদ বিরোধী সেমিনার করছে সুচিন্তা ফাউন্ডেশন। তারই ধারাবাহিকতায় এবার রাজধানীর মিরপুরে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজিতে (বিইউবিটি) সোমবার ‘ তারুণ্য রুখো জঙ্গিবাদ’ শিরোনামে সেমিনারের আয়োজন করেছিল প্রতিষ্ঠানটি।

এতে উপস্থিত ছিলেন বিইউবিটি ট্রাস্ট, প্রফেসর ড. সফিক আহমেদ সিদ্দিক, উপাচার্য প্রফেসর মো. আবু সালেহ, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের এমপি নজরুল ইসলাম বাবু, চিত্রনায়ক রিয়াজ আহমেদ ও মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম সংসদের সভাপতি একেএম আজম খান।

সূচনা বক্তব্যে প্রফেসর ড. সফিক আহমেদ সিদ্দিক বলেন, এই উপমহাদেশে ইসলাম তলোয়ারের মাধ্যমে আসেনি, এসেছে সুফিবাদের মধ্য দিয়ে। হযরত শাহজালাল (র.), হযরত শাহ পরান (র.) আমানত শাহ (র.), নিজামউদ্দিন আউলিয়া প্রত্যেকেই এই উপমহাদেশে ইসলাম ধর্মের গোড়াপত্তনে অবদান রেখেছেন। ইসলামের যে শান্তি ও শীতলতা, মানবিকতা ও ঔদার্য তাতে আকৃষ্ট হয়ে আমাদের পূর্ব-পুরুষেরা ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন।

তিনি বলেন, কোনো ধরনের জঙ্গিবাদের সুযোগ সেখানে ছিল না। আমাদের রাসূল (সা.) এর মদিনা সনদের দিকে লক্ষ্য করলে দেখা যায়, সেখানে অন্য ধর্মের মানুষ কত নিরাপদ ছিল।

চিত্রনায়ক রিয়াজ আহমেদ বলেন, তারুণ্য বলতে আমি মনে করি, নতুনকে আলিঙ্গন করা, এগিয়ে যাওয়া, নিয়ম ভেঙে নতুন নিয়ম করা, ন্যায়ের পক্ষে প্রতিবাদ করা, প্রগতির পথে চলা, ক্রিকেট-ফুটবলের মাঠে ঝড় তোলা, গিটার হাতে গান গেয়ে মঞ্চ মাতানো, ভালবাসা- সবকিছু মিলিয়েই তারুণ্য। জীবনের শিশু, কিশোর, তরুণ ও বৃদ্ধ এই ধাপগুলোর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হচ্ছে তারুণ্য। তারুণ্যের আলোয় আলোকিত হয় সমাজ ও রাষ্ট্র। কিন্তু কিছু বিপদগামী, স্বার্থান্বেষী মানুষের প্ররোচনায় এই তারুণ্য হারিয়ে যাচ্ছে জঙ্গিবাদের অন্ধকারে। তাই সঠিক পথে থাকতে হবে।

নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের এমপি নজরুল ইসলাম বাবু বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার জিরো টলারেন্স নীতি সফলতার সঙ্গে এদেশ থেকে জঙ্গিবাদের অস্তিত্ব নির্মূল করেছে। যে চেতনার উপর ভর করে এদেশে জঙ্গিবাদ দানা বাঁধতে শুরু করেছিল সেই চেতনাকে রুখতে এবং এর ভয়ঙ্কর পরিণতি সম্পর্কে সামাজিক জাগরণ সৃষ্টিতে সুচিন্তা ফাউন্ডেশন যে কাজ করে যাচ্ছে সে জন্য তাদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। সমাজের সব শ্রেণির মানুষের উচিত এই ধরণের সামজিক সচেতনতা গড়ে তোলা।

মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম সংসদের সভাপতি একেএম আজম খান বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য হাজার কোটি টাকার কাজ নিয়ে এসেছিল জাপানের কিছু প্রতিনিধি। হলি আর্টিজানে তাদের জবাই করে হত্যার পর কতটা কষ্ট করে আবার ফিরিয়ে আনা হয়েছে তা সরকারই ভাল বলতে পারবেন। এই হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিল দেশের শত্রুরা। তারা ইসলামের শত্রু।

বিইউবিটির উপাচার্য প্রফেসর মো. আবু সালেহ বলেন, ধর্ম প্রত্যেকের ব্যক্তিগত বিশ্বাস এবং অধিকার। সেই বিশ্বাস ও অনুভূতির জায়গাটিতে তারা আঘাত করছে ক্ষমতা ও বাণিজ্যিক স্বার্থের লোভে। যার সঙ্গে ধর্মের আদৌ কোনো সম্পর্ক নেই। জঙ্গিবাদের ফলে ইসলামকে ক্ষতিগ্রস্ত করা হচ্ছে। ইসলামে বলা হয়েছে, সেই প্রকৃত মুসলমান যার কাছে অন্য ধর্মের মানুষের জান, মাল নিরাপদ থাকে।

সুচিন্তা গবেষণা সেলের পক্ষ থেকে আশরাফুল আলম শিক্ষার্থীদের প্রশ্ন-উত্তরের মাধ্যমে ইসলাম ধর্মে জঙ্গিবাদ সমর্থন-অসমর্থন বিষয়ে মতবিনিময় করেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন আজ সারাবেলার সম্পাদক জব্বার হোসেন।

Dating App
শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »