মোহাম্মদ কামরুজ্জামান »

Dating App

স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতি আড়াল করতে সরকার কাজ করছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে অভিযান পরিচালনা থেকে বিরত থাকতে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেওয়ার প্রসঙ্গ টেনে আজ বৃহস্পতিবার কুড়িগ্রাম থেকে এক ভার্চুয়াল ব্রিফিংয়ে রিজভী এই অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, ‘এখন স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ থেকে যে সাকুর্লার জারি করা হলো, সেই সার্কুলার জারি করার মাধ্যমে প্রমাণিত হলো যে, সরকার দুর্নীতিকে সংরক্ষণ করতে চায়, দুর্নীতিকে প্রটেকশন দিতে চায়। কারণ দুর্নীতির সাথে যারা জড়িত এই সমস্ত ভুয়া সনদ দেওয়া, জাল সনদ দেওয়া এবং স্বাস্থ্যখাতের যে জালিয়াতি সেই জালিয়াতির অধিকাংশই হলো ক্ষমতাসীন দলের। তাদের প্রটেকশন দেওয়ার জন্য এই পরিপত্র জারি করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘তার মানে সামনের দিনগুলো স্বাস্থ্য সেবার ক্ষেত্রে আরও ভয়ংকর পরিস্থিতি হবে এবং মানুষ কোনো ধরনের সেবাই পাবে না এই খাত থেকে। অর্থ্যাৎ করোনার যে সংক্রমণ দিনকে দিন বিস্তারলাভ করেছে ঢাকা থেকে সারা দেশে প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে গেছে, সেই ছড়িয়ে যাওয়ার কারণে অসুস্থ আক্রান্ত রোগীদের পরিণতি অত্যন্ত ভয়াবহ। তারই ইঙ্গিত দিচ্ছে এই পরিপত্র ঘোষণার মধ্য দিয়ে।’

উত্তরাঞ্চলের বগুড়া, কুড়িগ্রাম এলাকার বন্যা পরিস্থিতি সরজমিনে দেখে রিজভী বলেন, ‘আমি ঢাকা থেকে এখন কুড়িগ্রামে আছি। বিভিন্ন জেলার বন্যা পরিস্থিতি আমার স্বচক্ষে দেখা হয়েছে। বানভাসি মানুষ এখনো খাদ্যের অভাবে, গৃহের অভাবে তারা মানবেতর জীবন-যাপন করছেন।’

বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, ‘ভয়াবহ বন্যার ফলে মানুষের ঘর-বাড়ি, গবাদি পশু ভেসে গেছে, ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সেক্ষেত্রে ত্রাণ ও বন্যা মোকাবিলায় সরকারের যে পদক্ষেপ থাকা দরকার আমরা সেই পদক্ষেপ দেখিনি।’

কুড়িগ্রামে করোনা পরিস্থিতিও খারাপ অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘এখানে দিনকে দিন করোনা বিস্তারলাভ করছে, অনেক মানুষ ইতিমধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন। প্রত্যন্ত এই জেলায় করোনা মোকাবিলা করা ও করোনার সাথে লড়াই করার জন্য সরকারের যে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা দরকার সেটা এখানে নরক, কোনো ধরনের প্রতিকারের কিছু নেই।’

রিজভী বলেন, ‘এই স্বাস্থ্যখাতে ভয়ঙ্কর দুর্নীতির কারণে স্বাস্থ্যসেবা একেবারেই ধ্বংস হয়ে গেছে। আমরা ইতিমধ্যে রিজেন্ট হাসপাতালে কাহিনী দেখেছি, আমরা জেকেজির কাহিনী দেখেছি, আমরা সাহেদ-সাবরিনাদের কাহিনী দেখেছি- এই কাহিনী প্রতিদিন নিত্যনতুনভাবে আমরা দেখছি বিভিন্ন হাসপাতালগুলোতে একেকভাবে বেরিয়ে আসছে।’

Dating App
শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »