আমীর হোসেন »

Dating App

কারো চাওয়া কোক, কারো ফেয়ার এন্ড লাভলী। সবই রাত ১২টার পরে। ফোনে কেউ চাইছেন ব্রনের ক্রিম কারো চাহিদা পান, এমন সব আবদারই পূরণ করছেন রাজধানীর প্রথম রেড জোন পূর্ব রাজাবাজারের স্বেচ্ছাসেবকরা। স্থানীয় কাউন্সিলর বলছেন, মহামারির সংক্রমণ ঠেকানোর মতো বড় ইস্যুতে বাসিন্দাদের এসব তুচ্ছ বিষয়ও গুরুত্ব দিচ্ছেন তারা।

করোনার গতি রোধে প্রথম এলাকা হিসেবে জনবহুল পূর্ব রাজাবাজারকে রেড জোন ঘোষণা করে প্রশাসন। গত ১০ জুন থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে লকডাউন চলছে ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষের এ এলাকায়।

সবাইকে ঘরে রাখার আপ্রাণ চেষ্টা স্থানীয় প্রশাসনের। বাসিন্দাদের চাহিদা মতো কিনে আনা মুরগীও কেটে দিচ্ছেন স্বেচ্ছাসেবকরা। ফোনে একজন মধুফল লিচু চাইলে তাও জোগাড়ে ব্যস্ত এলাকার জন্য নিবেদিত মানুষগুলো।

তিন শিফটে প্রায় দেড়শ স্বেচ্ছাসেবী কাজ করেন পূর্ব রাজাবাজারে। আটটি প্রবেশ ও বের হবার পথের সাতটিই বন্ধ। আইবিএ হোস্টেলের পাশের গেটটি দিয়েই ঢোকা বেরোনো। এক বেলায় পঞ্চাশ জন করে প্রত্যেকটি অলিতে গলিতে চক্কর দেন তারা। কখনও কখনও বাসিন্দাদের আজব আবদার পূরণ করেও স্বস্তি তাদের কন্ঠে।

গড়ে প্রায় ৩০০ জন বাসিন্দা প্রতিদিন নানা কাজে বের হন রাজাবাজার থেকে। তবে জরুরী কাজ ছাড়া মজাদার অনেক বিষয়েরও অভিজ্ঞতা হয়েছে স্বেচ্ছাশ্রম দেয়া মানুষগুলোর। পূর্ব রাজাবাজারের লকডাউন প্রক্রিয়া নিয়ে স্থানীয়দেরও রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

Dating App
শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »