বার্তাবাংলা ডেস্ক »

বাসে উঠে বসে আছেন কিন্তু অতিরিক্ত যাত্রীর লোভে হেলপার ও চালক কারোরই বাস ছাড়ার নাম নেই। ঢাকা শহরে বাসে চড়েছেন কিন্তু এই অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হননি এমন মানুষ পাওয়া আসলেই মুশকিল। এ রকম অবস্থায় চালককে অনেক কথা বলতে চাইলেও ঝামেলা এড়াতে নীরব থাকেন অনেকেই। কিন্তু কেমন হয় যদি বাসে চালকই না থাকে? চালক ছাড়াই বাস স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনাকে পৌঁছে দিল গন্তব্যে, এমনটা হলে কোনো ঝামেলাই থাকে না আসলে।

ম্যাশেবলে প্রকাশিত এক খবরে জানা যায়, প্রোটেররা নামে একটি বাস প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান এ রকম একটি বাস তৈরির দাবি করেছে। এরই মধ্যে ফিনল্যান্ডের সমুদ্রপাড়ের রাস্তায় তা পরীক্ষামূলকভাবে চালানোও হয়েছে। তারা এই বাসটির মাধ্যমে তিনটি ধাপের একটি পরিকল্পনার কথা বলেছে, যার মাধ্যমে ভবিষ্যতে চালকবিহীন গাড়ি সবার জন্য সহজলভ্য হয়ে উঠবে। এই ধাপগুলো অনুসরণের ফলে জনগণের বাস চলাচল আরো নিরাপদ এবং কার্যকরী হয়ে উঠবে।

তাদের এই তিনটি ধাপের প্রতিটি ধাপ যে কার্যকরী তা আলাদাভাবে গবেষণা এবং উন্নয়নের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নেভাদা প্রদেশের রেনো শহরের একটি নির্দিষ্ট রাস্তায় নামানো হবে প্রোটেররার তৈরির বাসটিকে। প্রথম ধাপে সেন্সরের মাধ্যমে যাত্রীদেরকে বাসে ওঠানো হবে এবং যাত্রাপথ নির্দিষ্ট করে দেওয়া হবে। যদিও যেকোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়ানোর জন্য একজন চালককেও সঙ্গে রাখা হবে। দ্বিতীয় ধাপে সেন্সর থেকে স্ব-চালনার বিভিন্ন তথ্য নিয়ে বাসটি তার কাজ শুরু করবে। তৃতীয় ধাপে তারা চায় শুধু রেনো শহরের নির্দিষ্ট রাস্তায় নয়, গোটা নেভাদা শহরের রাস্তাগুলোতেই যেন তাদের বাস চলাচল করে সেই ব্যবস্থা করা।

All Media Link

প্রোটেররা তাদের এই প্রকল্পকে আখ্যা দিয়েছে “আমেরিকার প্রথম স্বয়ংক্রিয় বাস প্রকল্প”। শুধুমাত্র বাসই নয় স্বয়ংক্রিয় গাড়ি, ট্রাক নিয়েও কাজ করছে প্রতিষ্ঠানটি। তবে স্ব-চালিত বাস প্রকল্পে বড় বাধা হয়ে আসতে পারে ট্রাফিক সিস্টেম। তারা এ নিয়ে কাজ শুরু করেছে। তারা আশা করছে, ২০১৯ সাল নাগাদ স্ব-চালিত বাস রাস্তায় নামাতে পারবে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন »

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

বার্তাবাংলা ডেস্কে আপনাকে স্বাগতম। বার্তাবাংলা (BartaBangla.com) প্রথম সারির একটি অনলাইন গণমাধ্যম; যেটি পরিচালিত হচ্ছে ইউরোপ এবং বাংলাদেশ থেকে। বার্তাবাংলা ডেস্কে রয়েছে নিবেদিতপ্রাণ তরুণ একঝাঁক সংবাদকর্মী। ২০১১ সালে যাত্রা ‍শুরু করা এই অনলাইন পত্রিকাটি এরই মধ্যে পেয়েছে ব্যাপক পাঠকপ্রিয়তা। দেশে-বিদেশে ছড়িয়ে থাকা লাখো পাঠকই আমাদের পথচলার পাথেয়।

মন্তব্য করুন »