ফারজানা তন্বী »

যার চোখ নেই সেই বুঝতে পারে চোখের গুরুত্ব। চোখ ভালো থাকতে আমরা অনেকেই চোখের যত্ন করি না। এমনকি চোখের সমস্যা হলেও করি না। ফলে অকালেই চোখে উঠে যায় চশমা। বাড়তে থাকে চশমার পাওয়ার। বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে দৃষ্টিশক্তি যেমন কমতে থাকে, তেমনি অন্যান্য কিছু কারণেও দৃষ্টিশক্তি কমতে পারে। বর্তমানে বেশীর ভাগ মানুষই ঘন্টার পর ঘণ্টা টিভি দেখে ও কম্পিউটারে কাজ করে। আমার মোবাইল স্ক্রিনে তাকিয়েও পার হয় অনেকটা সময়। এ কারণেই দৃষ্টিশক্তি ঝাপসা হয়ে যাওয়াসহ চোখের আরো অনেক সমস্যা হয়। কিছু কাজ নিয়মিত করতে পারলে চোখ দুটোকে ভালো রাখা যায় আরও অনেকটা দিন। বাড়ানো যায় দৃষ্টিশক্তি।

পানির ঝাপটা দিন

চোখের অনেক বেশি ক্ষতি করে বায়ু দূষণ। বায়ু মন্ডলের ক্ষুদ্র ধূলিকণা, বিষাক্ত ধোয়া চোখে চুলকানি সৃষ্টি করে, পানি আসার সমস্যা সৃষ্টি করে এবং দৃষ্টিশক্তি কমিয়ে দেয়। বাইরে থেকে এসে চোখে ঠান্ডা পানির ঝাপটা দিন। সকালে ঘুম থেকে উঠেও পানির ঝাপটা দিন চোখে। এর ফলে চোখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে এবং দৃষ্টিশক্তি তীক্ষ্ণ হবে।

All Media Link

চোখের ব্যায়াম

চোখের স্বাস্থ্য ঠিক রাখার জন্য সহজ কিছু ব্যায়াম আছে। এই ব্যায়ামগুলো যে কোন সময়ই করা যায়। সোজা হয়ে বসে ঘড়ির কাঁটার দিকে এবং ঘড়ির কাটার বিপরীত দিকে চোখ ঘুরান। এভাবে ৫-১০ মিনিট করুন এবং তারপর চোখ বন্ধ করে বিশ্রাম নিন। আরেকটি সহজ ব্যায়াম হচ্ছে – চোখ থেকে ১২ ইঞ্চি দূরে এবং চোখ বরাবর একটি বস্তু রেখে তার দিকে তাকিয়ে থাকুন যতক্ষণ না চোখের পাতা পড়ে। কিছুক্ষণ বিরতি নিয়ে পুনরায় ব্যায়ামটি করুন। দিনে ২-৩ বার এই ব্যায়ামটি করতে পারেন।

বিশ্রাম দিন

টিভি দেখা বা কম্পিউটারে কাজ করার সময় বেশ কয়েকবার বিরতি নিন। একাধারে কম্পিউটার স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকলে কম্পিউটার ভিসন সিনড্রোম তৈরি হয়। ২ ঘন্টা পর পর ১০-১৫ মিনিটের বিরতি নিন। চোখের সতেজতার জন্য আপনার ডেস্কে কিছু ফুল রাখতে পারেন। যদি আপনি জানালার পাশে বসেন তাহলে বাইরের দিকে তাকাতে পারেন। এর ফলে চোখের চাপ কমবে এবং চোখ কিছুটা রিলাক্স হতে পারবে।

খাবার

গাজর, বীট, পেঁপে, মাছ ও সবুজ শাকসবজি খেলে দৃষ্টিশক্তি ভালো থাকে। লাল রঙের ফল ও সবজিতে ভিটামিন এ ও ভিটামিন ই থাকে যা চোখের জন্য উপকারী। প্রচুর পানি পান করুন এবং তাজা ফল ও সবজি খান। এর ফলে শরীর হাইড্রেটেড থাকবে এবং দৃষ্টিশক্তিরও উন্নতি হবে।

সুরক্ষিত রাখুন

বাহিরে যাওয়ার সময় সানগ্লাস পরুন। সুইমিং পুলে সাঁতারের সময় সুইম গিয়ার পরুন যাতে ক্লোরিনযুক্ত পানির সংস্পর্শ থেকে চোখ সুরক্ষিত থাকে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন »

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

আমি ইসরাত পুনম। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিষয়ে স্নাতকোত্তর করেছি। পড়াশোনার পাশাপাশি লেখালিখি করছি প্রায় চার বছর ধরে। বার্তাবাংলা’য় কাজ করছি লাইফস্টাইল সম্পাদক হিসেবে। আমার বিশেষ আগ্রহের ক্ষেত্র ফিচার, প্রযুক্তি আর লাইফস্টাইল। খুব ভালো লাগে ভ্রমণ, বইপড়া, আর ইন্টারনেট নিয়ে পড়ে থাকা :)

মন্তব্য করুন »