বার্তাবাংলা ডেস্ক »

india-hyderabad-blast20130222024023বার্তাবাংলা ডেস্ক ::হায়দ্রাবাদে সিরিজ বোমা ‍হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে ভারতের চিরবৈরি প্রতিবেশি রাষ্ট্র পাকিস্তান বলেছে, “সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ সবসময়ই নিন্দনীয় ও অসমর্থনযোগ্য।”

গতকালের সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৬ জন নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম।

এ প্রাণঘাতী হামলার নিন্দা জানিয়ে শুক্রবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, “সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তার জন্য মারাত্মক হুমকি।”

All Media Link

ভারতীয় জনগণের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে বিবৃতিতে আরও বলা হয়, “পাকিস্তান নিজেও সন্ত্রাসবাদের শিকার। এ হামলার ঘটনায় ভারতের শোকাহত জনগণের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছে পাকিস্তান। পাকিস্তানের জনগণ বোমা হামলায় হতাহতদের পরিবারের প্রতিও গভীর সমবেদনা জানাচ্ছে।”

শোকাহত ভারতীয় জনগণের জন্য সৃষ্টিকর্তার কাছে পাকিস্তান প্রার্থনা করছে বলেও জানানো হয় বিবৃতিতে।

এ দিকে, হায়দ্রাবাদে প্রাণঘাতী বোমা হামলার ঘটনার প্রেক্ষিতে ভারতের প্রধান প্রধান শহরগুলোতে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করেছে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম জানায়, বৃহস্পতিবার অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যের রাজধানী হায়দ্রাবাদে সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় ১৬ জন নিহত হয়। আহত হয় কমপক্ষে ১১৯ জন। নিহতদের মধ্যে ৩জন শিক্ষার্থী ছিল বলে জানায় পুলিশ। এছাড়া, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৫ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছে উদ্ধারকারী কর্তৃপক্ষ।

সংবাদ মাধ্যম আরও জানায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর হায়দ্রাবাদের দিলসুখনগরে দু’টি সিনেমা হল ও বাসস্ট্যান্ডের নিকটবর্তী একটি ছোট রেস্টুরেন্টের কাছে এ বিস্ফোরণ ঘটে।

ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুশীল কুমার সিন্ধে জানান, সিনেমা হলের কাছে রাখা বাইসাইকেলে বোমা দু’টির বিস্ফোরণ ঘটে। বোমাগুলো অত্যাধুনিক ও অত্যন্ত শক্তিশালী ছিল।

সিন্ধে শুক্রবার সকালে এলাকাটি পরিদর্শন করেন ও হাসপাতালে আহতদের দেখতে যান।

তিনি আরও জানান, হামলার ৪৮ ঘণ্টা আগে গোয়েন্দারা সন্ত্রাসী হামলার সম্পর্কে তথ্য পেয়েছিলেন। তথ্যে ব্যাঙ্গালুরু, হুবলি এবং কোয়েমবাতোরের পাশাপাশি হায়দ্রাবাদের হামলা সর্ম্পকে সর্তক করা হয়েছিল। ভারতীয় মুজাহিদিন ও লস্কর নামে দু’টি বিদ্রোহী দল এ হামলা করতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছিল।

এদিকে, হামলায় নিহত ১৬ জনের মধ্যে ১৩ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। নিহতদের মধ্যে দু’জন এমবিএ শিক্ষার্থী ও হায়দ্রাবাদে পুলিশের পরীক্ষা দিতে আসা একজন রয়েছেন। আহতদের অধিকাংশই শিক্ষার্থী এবং যুবক।

ঘটনা তদন্তে নিয়োজিত জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থাকে সাহায্যের জন্য অন্ধ্র প্রদেশ সরকার আরও পৃথক দু’টি বিশেষ দল গঠন করেছে।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম আরও জানিয়েছে, ঘটনাস্থল থেকে নমুনা সংগ্রহ করছে পুলিশ। কিন্তু ঘটনাস্থলের কাছে দু’টি সিসি ক্যামেরা নষ্ট থাকায় পুলিশের কাজে ব্যাঘাত ঘটছে। এছাড়া সাদা পোশাকে পুলিশ ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী এবং আশপাশের মানুষজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

হায়দ্রাবাদ পুলিশ শুক্রবার সকালে জানায়, ২০০৭ সালে যে স্থানে একটি বোমা অবিস্ফোরিত অবস্থায় পড়ে ছিল, ঠিক সেই স্থানে দ্বিতীয় বোমাটি বিস্ফোরিত হয়।

অন্ধ্র প্রদেশের পুলিশ প্রধান ভি দিনেশ রেড্ডি জানান, হায়দ্রাবাদের সবচেয়ে জনবহুল স্থানে এই বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশায় এ কাজ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর স্থানীয় সময় ৭টা ১মিনিটে প্রথম বোমাটি বিস্ফোরণ ঘটলে ৮ জন নিহত হন। এর মাত্র ৫ মিনিট পর ৫০০ মিটার দূরত্বে দ্বিতীয় বোমাটি বিস্ফোরণে নিহত হন আরো ৩ জন।

হায়দ্রাবাদের দিলসুখনগরের জনপ্রিয় কোর্নাক এবং ভেনকাতাদ্রি নামে দুটি সিনেমা হলের সামনে বোমা বিস্ফোরণে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে।

দ্বিতীয় বোমাটি বিস্ফোরণের ৯ মিনিট পর স্থানীয় বাসস্ট্যান্ডে তৃতীয় বোমার বিস্ফোরণ ঘটে। তবে তৃতীয় বোমায় এতে কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, ২০০৭ সালে হায়দ্রাবাদে বোমা বিস্ফোরণে ৪০ জন নিহত হয়েছিল।

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন »

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

মন্তব্য করুন »