বার্তাবাংলা ডেস্ক »

Jammat+Ameerবার্তাবাংলা ডেস্ক ::জামায়াতে ইসলামীর রাজশাহী মহানগর শাখার আমির আতাউর রহমানকে ঢাকায় বোমাসহ গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর কল্যাণপুর থেকে এই জামায়াত  নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার প্রধান জিয়াউল আহসান।

তিনি বলেন, “আতাউর রহমান রাজশাহী থেকে ট্রেনে করে রওনা হলেও পথে ট্রেন থেকে নেমে বাসে করে ঢাকা পৌঁছান।”

সোমবার রাজশাহীতে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে হামলার ঘটনায় এই জামায়াত নেতাও জড়িত ছিলেন বলে জিয়াউল আহসান জানান।

All Media Link

আতাউরের কাছে কী পাওয়া গেছে জানতে চাইলে র্যর‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক কিসমত হায়াত বলেন, তার কাছে ২০টি বোমা পাওয়া যায়।

“এর মধ্যে আটটি শক্তিশালী হাতবোমা, যা একজন মানুষকে নিমেষেই মারতে সক্ষম। পরীক্ষা করে দেখা গেছে, এর মধ্যে যথেষ্ট স্প্লিন্টার ছিল।”

এদিকে আতাউরকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে বুধবার রাজশাহী জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে জামায়াত।

রাজশাহী মহানগর জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি মো. জাহাঙ্গীর একথা সাংবাদিকদের জানান।

হরতালের সমর্থনে সন্ধ্যায় রাজশাহী নগরীতে মিছিল করে জামায়াত। মিছিলকারীরা সোনাদীঘির মোড়ে কয়েকটি হাতবোমার বিস্ফোরণও ঘটায়।

সোমবার রাত পৌনে ৮টার দিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন বিনোদপুরে আওয়ামী লীগের ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কার্যালয়ে হামলা চালায় জামায়াত-শিবিরকর্মীরা। পরে পুলিশ ও স্থানীয়দের ধাওয়া খেয়ে তারা পালিয়ে যায়।

এ সময় তিনজন গুলিবিদ্ধ হন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মতিহার থানার ওসি আব্দুস সোবহান জানান, হামলাকারীরা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী ছবি এবং আসবাবপত্র ভাংচুর করে। এছাড়া দুটি মোটর সাইকেলে তারা আগুন দেয়।

এরপর আওয়ামী লীগকর্মীরা শিবিরের তিনটি ছাত্রাবাসে হামলা করে। অন্যদিকে শিবিরকর্মীরা বিনোদপুর মোড়ে পুলিশের গাড়িতে হাতবোমা নিক্ষেপ করে।

যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল বাতিল ও শীর্ষ নেতাদের মুক্তির দাবিতে গত নভেম্বর থেকেই সহিংস ভূমিকায় দেখা যাচ্ছে জামায়াত কর্মীদের। বিভিন্ন স্থানে পুলিশের ওপর হামলা চালানোর পাশাপাশি ব্যাপক হারে গাড়ি ভাংচুর করছে তারা।

একাত্তরে বাংলাদেশের স্বাধীনতাবিরোধী ভূমিকা ও ‍যুদ্ধাপরাধের কারণে দলটিকে নিষিদ্ধ করার দাবিও সম্প্রতি জোরালো হয়ে উঠেছে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন »

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

মন্তব্য করুন »